শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি

  ০৩ এপ্রিল, ২০২১

আগুনে পুড়িয়ে স্ত্রী-সন্তানকে হত্যার চেষ্টা!

বগুড়া শেরপুরে স্ত্রী-সন্তানকে হত্যার উদ্দেশ্যে ঘরের দরজা বন্ধ করে দিয়ে বাড়িতে আগুন দেয়ার অভিযোগ উঠেছে নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে। 

শনিবার সকাল ১১ টায় শেরপুর পৌর শহরের ৯নং ওয়ার্ডের খন্দকারপাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় শেরপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

জানা যায়, খন্দকারপাড়া এলাকার নজরুল ইসলাম গত ৪বছর আগে বরিশাল জেলায় দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এরপর থেকে প্রথম স্ত্রী শাহনাজকে কোন খরচ না দিয়ে তাদেরকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়ার জন্য বিভিন্ন সময় হুমকি ধামকি দিয়ে আসছিল।

এরই একপর্যায়ে পারিবারিক দ্বন্দ্বে শনিবার সকাল ৯টায় বাড়িতে এসে ছেলে নোমান তার স্ত্রী মুক্তা ও মা শাহানাজ খাতুনকে বেধড়ক মারপিট করে বাড়িঘর ভাঙচুর করে এবং ঘর থেকে বের করে দেয়ার চেষ্টা করে।

এসময় তারা জীবন রক্ষার্থে ৯৯৯ নাম্বারে ফোন করলে শেরপুর থানার পুলিশ সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে নজরুল ইসলাম আবার বেলা ১১টার দিকে ঘরের দরজা ও বাড়ির গেট বন্ধ করে দিয়ে স্ত্রী-ছেলে ও পুত্রবধুকে হত্যার উদ্দেশ্যে আগুন ধরিয়ে দেয়।

পরে এলাকাবাসী বাহির থেকে আগুন জ্বলতে দেখে ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় শাহনাজ বেগম বাদী হয়ে শেরপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

ভুক্তভোগী নোমান জানান, আমাদেরকে হত্যার উদ্দেশ্যে বাড়ির দরজা বন্ধ করে দিয়েছে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে আমার বাবা। 

শাহানাজ খাতুন জানান, দ্বিতীয় বিয়ের পর থেকে আমাদেরকে বিভিন্নভাবে জীবননাশের হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে। আমরা বাড়ি থেকে বাহির হয়ে না যাওয়ায় আমাদেরকে হত্যার উদ্দেশ্যে বাহির থেকে দরজা বন্ধ করে বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়। 

এ ব্যাপারে শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, আমরা ৯৯৯ থেকে একটি কল পেয়ে সেখানে বাড়িতে ভাঙচুর হওয়ার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি। তখন বাড়িতে আগুন লাগানো হয়নি। পরে শাহনাজ নামের এক মহিলাকে দরজা বন্ধ করে আগুন লাগিয়ে দেয়ার একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

পিডিএসও/এসএম  শামীম

 

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
স্ত্রী-সন্তান,হত্যার চেষ্টা
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close