ইউপি সদস্যকে মিথ্যা মামলার আসামি করায় উত্তাল কক্সবাজার

প্রকাশ : ১৪ আগস্ট ২০২০, ১৭:৩০

কক্সবাজার প্রতিনিধি

কক্সবাজার সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউনিয়নের ৯ নাম্বার ওয়ার্ড সদস্য শরীফ উদ্দিনের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলার আসামি করার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে এলাকাবাসী। শুক্রবার দুপুরে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের খরুলিয়া বাজার এলাকায় ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে মানববন্ধনে সামিল হন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধনে স্থানীয় জনসাধারণ অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন।

এতে বক্তব্য রাখেন, ঝিলংজা ইউপি চেয়ারম্যান টিপু সুলতান, ইউপি সদস্য আবদুর রশিদ, আবুল হোসেন, সলিমুল্লাহ, খরুলিয়াবাজার বণিক সমিতির সভাপতি মো. আলম, ফরিদ উদ্দিন ও নুরুল ইসলামসহ এলাকার বিভিন্ন স্তরের পেশাজীবী মানুষ।

বক্তারা বলেন, এলাকায় কোন ঘটনা, দুর্ঘটনা হলে জনপ্রতিনিধিরা খবর পেয়ে সেখানে উপস্থিত হন। বরাবরের মতো এদিনও ইয়াবা ব্যবসায়ী আটকের খবর পেয়ে ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের সাথে সদস্য শরিফ উদ্দিন ঘটনাস্থলে গিয়ে আটক ইয়াবা ব্যবসায়ীকে পুলিশের হাতে সোপর্দ করেন। পরবর্তীতে পুলিশ হেফাজতে হাসপালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। কিন্তু এ ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় ৯ নাম্বার ওয়ার্ড ইউপি সদস্য শরীফ উদ্দিনকে দুই নাম্বার আসামি করা নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের শেষ নেই।

এলাকাবাসী বলেন, শরিফ উদ্দিনের জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে তার প্রতিপক্ষের লোকজন বাদীপক্ষের সাথে আতাঁত করে তাকে অহেতুক হয়রানী করার জন্য এই মামলায় জড়িত করা হয়েছে। এলাকাবাসী অবিলম্বে উক্ত মামলার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক নিরীহ আসামীদেরকে মামলা হতে অব্যাহতির দাবি তুলেন।

প্রসংগত, ১০ আগষ্ট দুপুরে কক্সবাজার সদরের খরুলিয়া বাজার এলাকায় ভ্রাম্যমাণ অবস্থায় খুচরা ইয়াবা বিক্রিকালে ইয়াবা ও নগদ ১ লাখ আটাশ হাজার টাকাসহ জনতার হাতে আটক হন নবী হোসেন নামের একব্যক্তি। এসময় জনগণকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে ফের আটক পরবর্তী গণপিটুনির শিকার হন ওই নবী হোসন। পরে উপস্থিত লোকজন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের খবর দেন। ঝিলংজা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান টিপু সুলতান ও ৯ নাম্বার ওয়ার্ডের মেম্বার শরিফ উদ্দিন এসে বিকেলে সদর মডেল থানা পুলিশের এসআই সঞ্জয়ের হাতে ইয়াবা ও নগদ টাকাসহ আহত নবী হোসেনকে তুলে দেয়।

১১ আগষ্ট সকাল পৌনে ৮ টার দিকে হাজতী নবী হোসেন অসুস্থবোধ করলে তাকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সকাল ৯ টার দিকে হাসপাতালে মারা যান নবী হোসেন। এনিয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি শাহজাহান কবিরকে ক্লোজড করা হয়। এ ঘটনায় এক জনপ্রতিনিধিসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে নিহতের ভাই বাদি হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করে।

পিডিএসও/এসএম শামীম