সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি

  ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১

খুঁড়িয়ে চলছে টেলিফোন এক্সচেঞ্জের কার্যক্রম

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ টেলিফোন এক্সচেঞ্জের কার্যক্রম অনেকটাই খুঁড়িয়ে চলছে। আবর্জনা, আগাছা, ভাঙা বাউন্ডারি ওয়াল আর ছেঁড়া ভূগর্ভস্থ লাইনে চলে এর কার্যক্রম। মোবাইল ফোন আসার পর থেকে অফিসটি হারাতে থাকে তার পুরোনো ঐতিহ্য। সঠিক পরিচর্যা আর দেখভালের অভাবে হয়ে পড়েছে আবর্জনার স্তূপ।

জানা যায়, উপজেলার বাহিরগোলা মোড়ের দক্ষিণ পাশে এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পূর্বপাশে ১৯৮৭ সালে ৮৫ শতাংশ জমির ওপর নির্মিত হয় সুন্দরগঞ্জ টেলিফোন এক্সচেঞ্জ। উঁচু টাওয়ার, চারদিকে বাউন্ডারি ওয়াল আর একটি দোতলা ভবন নিয়ে যাত্রা শুরু করে এক্সচেঞ্জ অফিসটি।

সরেজমিনে দেখা যায়, মূল ফটকের পশ্চিম পাশে তিন নম্বর কেবিনেটের সঙ্গে পূর্ব পাশে বাউন্ডারির ভেতরে পুরো অংশ এবং পশ্চিম পাশে আবর্জনার স্তূপ গড়ে উঠেছে। এছাড়া বাউন্ডারি ওয়ালের চারপাশে রয়েছে ঘন আগাছা। অফিসের উত্তর-পশ্চিম পাশে রয়েছে খড়ের গাদা। বছর পাঁচেক আগে বাউন্ডারির তিন দিকের ছয়টি স্থান ভেঙে গেছে ওয়ালের ইট।

এদিকে পৌরসভার ড্রেন নির্মাণের সময় পুলিশ স্টেশনের সামনের ১নং কেবিনেট ও ভূগর্ভস্থ ক্যাবল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সরিয়ে নেওয়া হয় কেবিনেটটি।

উপজেলায় টেলিফোন সেবা গ্রহণকারীর সংখ্যা ২৫০টি থাকলেও বর্তমানে কাগজে কলমে রয়েছে ১৭০টি। এছাড়া বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি অফিসে ৪৮টি সংযোগ থাকলেও বর্তমানে সচল রয়েছে মাত্র ৮টি। অপরদিকে ডাকবাংলো সেতুতে থাকা প্রায় ১৫০ মিটার ক্যাবল চুরি হওয়ায় মীরগঞ্জ বাজারের টেলিফোন সেবা বন্ধ রয়েছে।

অফিসে দায়িত্বপ্রাপ্তদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আশপাশের বাসা, বাড়ি ও বিভিন্ন দোকানের ময়লা ফেলতে বাধা দিলেও কেউ তোয়াক্কা করে না। এ নিয়ে পৌর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেও কোনো সুফল মেলেনি। বিটিসিএল গাইবান্ধার উপসহকারী প্রকৌশলী রেজাউল করিম বসুনিয়া জানান, বাউন্ডারি ওয়াল সংস্কারের জন্য গত জুন মাসে স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে এর বেশি কোনো তথ্য দিতে নারাজ এ কর্মকর্তা।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close