ভারতের শিক্ষানীতিতে ব্যাপক সংস্কার

প্রকাশ : ৩১ জুলাই ২০২০, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

তিন দশকেরও বেশি আগে প্রণয়ন করা জাতীয় শিক্ষানীতি (এনইপি) সংস্কার করেছে ভারত। গত বুধবার জাতীয় শিক্ষানীতি ২০২০ অনুমোদন দিয়েছে দেশটির মন্ত্রিসভা। এতে দেশটির সব স্কুলে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষায় শিশুদের মাতৃভাষা কিংবা যেকোনো একটি স্থানীয়/আঞ্চলিক ভাষাকে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এ ছাড়া তিন থেকে ১৮ বছর পর্যন্ত বয়সের সব শিশুর জন্য বাধ্যতামূলক শিক্ষা, ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে ইন্টার্নশিপসহ ভোকেশনাল শিক্ষার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। প্রচলিত ১০+২ স্কুল কাঠামো (দশম শ্রেণি পর্যন্ত মাধ্যমিক ও দুই বছরের উচ্চমাধ্যমিক) এবং চার বছর মেয়াদি স্নাতক কোর্সও বদলানোর কথা বলা হয়েছে। সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদন থেকে এসব কথা জানা গেছে। সর্বশেষ ১৯৮৬ সালে জাতীয় শিক্ষা নীতিতে বড় ধরনের সংস্কার আনে ভারত সরকার। দীর্ঘ সময় পর ওই নীতি সংস্কার করে দেশটির মানব সম্পদ ও উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের নাম বদল করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় করা হয়েছে। পরিবর্তিত এই শিক্ষানীতিকে স্বাগত জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে থাকা শিক্ষা খাতে এই সংস্কারের জন্য বহু অপেক্ষা করতে হয়েছে। নতুন নীতিতে স্কুলের বাইরে থাকা ২ কোটি শিশুকে মূলধারার শিক্ষায় ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যও নির্ধারণ করা হয়েছে। ভারতের নতুন শিক্ষানীতিতে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত (সম্ভব হলে অষ্টম বা তারও চেয়েও উচ্চতর শ্রেণি পর্যন্ত) মাতৃভাষা কিংবা স্থানীয় কিংবা আঞ্চলিক ভাষায় সব স্কুলে পাঠ দেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এই নীতিতে সব পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের কাছে সংস্কৃত ভাষা অধ্যয়নের প্রস্তাব দিতে বলা হয়েছে। বিদেশি ভাষা শিক্ষা শুরু হবে মাধ্যমিক স্কুল পর্যায় থেকে। তবে কোনো শিক্ষার্থীর ওপর কোনো ভাষা চাপিয়ে দেওয়া যাবে না বলেও উল্লেখ করা হয়েছে ওই নীতিতে।

গত বছরের জুনে খসড়া শিক্ষানীতি প্রকাশের পর এসব প্রস্তাব নিয়ে ভারতে ব্যাপক বিতর্ক শুরু হয়। দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় অনেক রাজ্যই আশঙ্কা করতে থাকে স্কুল শিক্ষার্থীদের ওপর হিন্দি ভাষা চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হবে।

ভারতের জাতীয় শিক্ষানীতি ২০২০ অনুযায়ী ১০+২ স্কুল কাঠামো বদলিয়ে তা ৫+৩+৩+৪ করার কথা বলা হয়েছে। এতে মোট ১২ বছরের স্কুল শিক্ষার আগে তিন বছরের প্রাক-স্কুল বা অঙ্গনওয়াড়ি ধাপ রাখতে বলা হয়েছে। এর আওতায় সম্পূর্ণ শিক্ষা বিন্যস্ত হবে চারটি ধাপে। এগুলো হলোÑ মৌলিক পর্যায় (তিন থেকে আট বছর), তিন বছরের প্রাক প্রাথমিক (আট থেকে ১১ বছর), প্রস্তুতিমূলক পর্যায় (১১ থেকে ১৪ বছর), এবং মাধ্যমিক পর্যায় (১৪ থেকে ১৮ বছর)।

 

"