চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদ স্মরণে নানা কর্মসূচি

প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০২০, ০০:০০

ফরিদপুর প্রতিনিধি

মুক্তির গান, মাটির ময়না, আদম সুরত, রানওয়েসহ সাড়াজাগানো চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। খ্যাতিমান এই চলচ্চিত্রকারের মৃত্যুদিনটিতে তার নিজ গ্রামে সরকারি কোনো কর্মসূচি না থাকলেও পরিবারের উদ্যোগে স্বল্প পরিসরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। মৃত্যুর পর দীর্ঘ ৯ বছর পেরিয়ে গেলেও তারেক মাসুদের স্মৃতি রক্ষায় কোনো স্মৃতি কমপ্লেক্স নির্মিত না হওয়ায় হতাশ তারেক মাসুদের পরিবার ও এলাকাবাসী। তবে তারেক মাসুদের স্মৃতি ধরে রাখতে তার বাড়ির সামনে একটি ভাস্কর্য ও পৌরসভার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কের নামকরণ করা হবে বলে জানান পৌর মেয়র।

২০১১ সালের ১৩ আগস্ট তিনি নিজ পরিচালনায় নির্মিতব্য চলচ্চিত্র ‘কাগজের ফুল’-এর শুটিং লোকেশন দেখে ঢাকায় ফেরার পথে মানিকগঞ্জের জোকা নামক স্থানে এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় তারেক মাসুদ এবং গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন মারা যান।

এই চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব ছিলেন পাঁচ ভাই-বোনের মধ্যে সবার বড়। শৈশবে স্থানীয় একটি মাদরাসায় কিছুদিন লেখাপড়া করেছেন। তারপর তিনি ভাঙ্গা পাইলট উচ্চবিদ্যালয়ে পড়াশোনা শেষে ঢাকা চলে যান। পরবর্তীতে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করেন।

এদিকে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদের বাড়িতে এসে হতাশ হয়ে ফিরে যান দর্শনার্থীরা। কারণ তারেক মাসুদের বাড়িতে নেই তার কোনো স্মৃতি। এ প্রসঙ্গে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আমরা করব জয়-এর সাধারণ সম্পাদক শরিফ খান বলেন, ‘তারেক মাসুদ গত হয়েছেন দীর্ঘ ৯ বছর। অথচ এখন পর্যন্ত তার স্মৃতি ধরে রাখার কোনো উদ্যোগ নেই। আমরা চাই সরকার দ্রুত তার স্মরণে একটি স্মৃতি কমপ্লেক্স নির্মাণ করবে।’

সাংস্কৃতিক কর্মী অ্যাডভোকেট শিপ্রা গোস্বামী বলেন, তারেক মাসুদ শুধু ফরিদপুরের নয়, সারা দেশের গর্ব, তিনি আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন একজন মানুষ। তার জন্মদিন ও মৃত্যুবার্ষিকী সরকারিভাবে পালন করার দাবি জানান তিনি।

তারেক মাসুদের মা নুরুননাহার মাসুদ হতাশা ব্যক্ত করে বলেন, ‘এখানে আর কিছুই হবে না। আমি মনে করেছিলাম তারেকের নামে কমপ্লেক্স হবে, লাইব্রেরি হবে, রাস্তার পাশে একটি দৃষ্টিনন্দন মসজিদ হবে, কিন্তু দীর্ঘ ৯ বছরেও আমি কিছুই দেখে যেতে পারলাম না। আমার সময় শেষ হয়ে এসেছে।’

তারেক মাসুদের স্মৃতি ধরে রাখতে ভাঙ্গা পৌরসভার পক্ষ থেকে ব্যাপক কর্মকা হাতে নেওয়ার কথা জানান ভাঙ্গা পৌরসভার মেয়র আবু ফয়েজ মো. রেজা। তিনি বলেন, তারেক মাসুদের স্মৃতি ধরে রাখতে তার বাড়ির সামনে একটি ভাস্কর্য ও পৌরসভার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কের নামকরণ করা হবে।

তবে তারেক মাসুদের স্মৃতিকে আগামী প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে সরকার প্রদক্ষেপ গ্রহণ করবে এমনটাই প্রত্যাশা ফরিদপুরবাসীর।

অন্যদিকে, রাজধানীতে চলচ্চিত্রকার তারেক মাসুদ ও চলচ্চিত্রগ্রাহক মিশুক মুনীরের নবম প্রয়াণ দিবস উপলক্ষে মুভিয়ানা ফিল্ম সোসাইটি এবং তারেক মাসুদ মেমোরিয়াল ট্রাস্ট যৌথভাবে তারেক মাসুদ স্মরণে স্মৃতিতর্পণ এবং তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীর স্মরণে মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্বালনের কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

 

"