আকবরের গ্রেফতার দাবিতে সিলেটে বিক্ষোভ অব্যাহত

রায়হানের বাড়িতে তদন্ত কমিটি

প্রকাশ : ২২ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০

সিলেট প্রতিনিধি

রায়হান হত্যার ১১ দিন পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত আকবরকে গ্রেফতার করতে না পারায় প্রতিদিনই বিক্ষোভ হচ্ছে সিলেটে। গতকাল বুধবার দুপুরে নগরীর বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির সামনে বিক্ষোভ মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে ছাত্র, যুবক ও শ্রমিক অধিকার পরিষদসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন।

এ সময় বক্তারা দ্রুত আকবরসহ হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতার ও শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানান। নাগরিকের জীবনের নিরাপত্তার দাবি জানান তারা। এদিকে, পুলিশের নির্যাতনে রায়হান হত্যায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতারে পরিবার ও এলাকাবাসীর দেওয়া ৭২ ঘণ্টার আলটিমেটাম গতকাল শেষ হয়েছে। ওই আলটিমেটামের সময়সীমা শেষ হওয়ায় নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন নেহারিপাড়ার বাসিন্দারা ও রায়হানের পরিবার। গতকাল মঙ্গলবার রাতে এক বৈঠকে তিন দিনের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে আজ বৃহস্পতিবার পরিবার ও এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ, পরদিন শুক্রবার বাদ জুমা মসজিদে মসজিদে রায়হানের জন্য দোয়া মাহফিল ও শনিবার বিকাল ৪টায় এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে মদিনা মার্কেট পয়েন্টে মানববন্ধন।

রায়হানের আত্মীয় মো. শওকত হোসেন বলেন, ৭২ ঘণ্টার আলটিমেটামের শেষের পর কঠোর কর্মসূচির কথা থাকলেও সাধারণ মানুষের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে আপাতত সেখান থেকে সরে আসা হয়েছে। তবে প্রশাসন জড়িতদের গ্রেফতারে ব্যর্থ হয় কঠোর কর্মসূচির ঘোষণা আসবে। নতুন কর্মসূচি সফল করতে সিলেটের সর্বস্তরের মানুষের সহযোগিতা কামনা করেন শওকত হোসেন।

এ ব্যাপারে এলাকাবাসীর পক্ষে আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ জানান, রায়হান হত্যা জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করতে সরকারের কঠোর নির্দেশ রয়েছে। জড়িতদের গ্রেফতারে আন্দোলন কোনো রাজনৈতিক আন্দোলন নয়। বিচার পাওয়ার আন্দোলনে সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

এদিকে, পুলিশ সদর দফতরের তদন্ত কমিটির সদস্যরা গত মঙ্গলবার রাতে পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (এআইজি) মোহাম্মদ আয়ুবের নেতৃত্বে নগরীর আখালিয়ায় রায়হানের বাড়িতে যান। এ সময় রায়হানের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন তদন্ত কমিটির সদস্যরা।

তদন্ত কমিটির প্রধান এআইজি মোহাম্মদ আয়ুব বলেন, এসআই আকবর পালিয়ে যাওয়ার সঙ্গে কারা জড়িত তা শনাক্ত করার জন্য আমাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এই তদন্তের অংশ হিসেবেই আমরা রায়হানের বাড়িতে এসেছি এবং তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছি। দু-এক দিনের মধ্যেই এই তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, গত ১১ অক্টোবর ভোরে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে পুলিশের নির্যাতনে রায়হান আহমদ (৩৪) নিহত  হয়েছেন। রায়হান সিলেট নগরীর আখালিয়ার নেহারিপাড়ার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে।

 

"