ব্রেকিং নিউজ

এক আংটিতে এত হীরা!

প্রকাশ : ২৬ অক্টোবর ২০২০, ১২:৫০

অনলাইন ডেস্ক

হীরার আংটি এখন আর তত দুষ্প্রাপ্য কিংবা দুর্মূল্য নয়। একটু সঞ্চয় করে যে কোনও চাকরিজীবী সারাজীবনের অন্যতম দাবি সম্পদ হিসেবে একটা হীরার আংটি কিনতেই পারেন। এনগেজমেন্ট রিং হিসেবে তো হীরার চাহিদা বাড়ছে বই কমছে না। কিন্তু আপনার কেনা আংটিতে কটি হীরা থাকবে বলে ধারণা? এক, দুই করে গুনতে গুনতে পাঁচের বেশি যে কেউ এগোতেই পারবেন না, তা হলফ করে বলা যায়।

কিন্তু ভারতের হায়দরাবাদের এক স্বর্ণ সংস্থার মালিক তথা ডিজাইনারের তৈরি একটা আংটিতে কয়টি হীরা আছে জানেন? আন্দাজও করা যাবে না। পদ্মফুল আকারের আংটিতে হীরার সংখ্যা ৭৮০১! তার এই সৃষ্টিই গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে দ্যুতি ছড়িয়েছে। খবর সংবাদ প্রতিদিনের

ব্রহ্মকমল – হিমালয়ের কোলে ফোটা দুষ্প্রাপ্য এক ফুল। সেই ফুলই কোট্টি শ্রীকান্তের সৃজনের অনুপ্রেরণা। ভেবেই রেখেছিলেন, হীরার আংটি যখন গড়তেই বসেছেন, তখন তাতে ফুটিয়ে তুলবেন ব্রহ্মকমল। সেইমতো নিষ্ঠাভরে কাজ শুরু করেন আজ থেকে বছর দুই আগে। সেপ্টেম্বর, ২০১৮ থেকে তার অসীম ধৈর্য, মনোযোগ আর হাতের জাদুতে হীরকে আকার পেয়েছে একটি পদ্ম। কাজ কিন্তু সহজ ছিল না মোটেই। এ ধরনের একটি ফুল ফোটাতে হলে তাকে স্তরে স্তরে সাজাতে হয়। মোট ছ’টি স্তর আছে এতে। পাঁচটি স্তরে মোট আটটি পাপড়ি, আর শেষ স্তরে রয়েছে ছটি পাপড়ি। ফুলের একেবারে কেন্দ্রে রয়েছে তিনটি রেণু, তাও হীরাখচিত। ১১ মাসের অক্লান্ত পরিশ্রমে ব্রহ্মকমলের আদলে অঙ্গুরীয় তৈরি করে ফেলেন কোট্টি শ্রীকান্ত। গুনে দেখেন, আংটিতে রয়েছে মোট ৭৮০১টি হীরা! একটিও কম নয়। সেটা ২০১৯, আগস্ট।

এরপর নিজে সৃষ্টিকর্ম গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডের জন্য পাঠান হায়দরাবাদের ডিজাইনার। গত মাসে গিনেস কমিটি তার এই সৃষ্টিকে বিশ্ব দরবারে স্বীকৃতি দেন। ৭৮০১টি হীরা দিয়ে কীভাবে শ্রীকান্ত আংটি তৈরি করলেন, তার একটি ভিডিও নিজেদের সোশ্যাল মিডিয়া পেজে শেয়ার করেছে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড কমিটি।

পিডিএসও/ জিজাক