প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ২১ নভেম্বর, ২০২১

ইউরোপের একাধিক দেশে ফের লকডাউন

বড়দিনের উৎসবের মৌসুমে ইউরোপে আবার করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। করোনা নিয়ন্ত্রণে বড়দিন ও নতুন বছরের উৎসবের আগেই লকডাউন কার্যকর হতে চলেছে। ইউরোপের মধ্যে অস্ট্রিয়া, জার্মানি ও রাশিয়ায় দৈনিক করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুর রেকর্ড তীব্রতা দেখা গিয়েছে। এই দেশগুলোতে কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে এবং ইউরোপের মধ্যে অস্ট্রিয়াই প্রথম দেশ যেখানে করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্য লকডাউন কার্যকর করা হয়েছে। ইউরো নিউজের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

ঠা-া আবহাওয়া ভাইরাসের বিস্তারকে প্রভাবিত করেছে বলে ইউরোপের বিভিন্ন অংশে করোনার সংক্রমণ আবার বাড়ছে। জার্মানের ভাইস চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মারকেল নাগরিকদের টিকা দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। এরই মধ্যে দেশের সর্বোচ্চ করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। মারকেল বলেন, ‘পরিস্থিতি এখন চূড়ান্ত নাটকীয়তায় চলে গিয়েছে।’ জার্মানের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জেনস স্পান জানিয়েছেন যে জার্মানি হয়তো করোনা রোগীদের এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে বা এমনকি প্রতিবেশী দেশেও চিকিৎসার জন্য পাঠাতে পারে। স্পান বলেন, ‘আমরা এমন একপর্যায়ে পৌঁছেছি যেখানে আমাদের করোনা রোগীদের শুধু একই অঞ্চলে নয়, জার্মানির অন্যান্য অঞ্চলে স্থানান্তর করতে হবে।’ গত শুক্রবারও জার্মানিতে দৈনিক করোনা সংক্রমণ রেকর্ড হয়েছে ৫২ হাজার ৯৭০টি। জার্মানের বাভারিয়া, করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির জন্য তাদের জনপ্রিয় বড়দিনের বাজার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

করোনা সংক্রমণের তীব্রতা কমাতে অস্ট্রিয়া এরই মধ্যে লকডাউন কার্যকর করার কথা ঘোষণা করেছে এবং দেশের পুরো জনসংখ্যাকে ফেব্রুয়ারির মধ্যে সম্পূর্ণ টিকাকরণের আওতায় আনার কথা বলা হয়েছে। অস্ট্রিয়ান চ্যান্সেলর আলেকজান্ডার শ্যালেনবার্গ বলেছেন, ‘মানুষকে টিকাকরণের জন্য আমরা যথেষ্টভাবে রাজি করাতে পারছি না। কিন্তু এখন এটা নিয়ে কড়া বন্দোবস্ত করতে হবে। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা পারস্পরিক সহযোগিতা দেখাননি। এই দুষ্টচক্র ভাঙার একমাত্র উপায় টিকাদানের হার বাড়ানো।’ দেশজুড়ে লকডাউন কার্যকর হবে আগামী সোমবার থেকে। গত ২৪ ঘণ্টায় এই দেশে ১৫ হাজার ৬০৯টি নতুন সংক্রমণ দেখা দিয়েছে, যা মহামারি শুরুর পর থেকে সর্বোচ্চ।

বিশ্বের সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্তের তালিকায় পাঁচটি দেশের একটি হলো রাশিয়া। টিকা প্রয়োগের পর কয়েক মাস আক্রান্ত ও মৃত্যু হার নিয়ন্ত্রণে থাকলেও গত সপ্তাহ থেকেই তা আবার বাড়তে শুরু করেছে। এই পরিস্থিতিতে কর্মক্ষেত্র, রেস্তোরাঁ কিংবা শপিং মলে গেলে টিকা সনদ সঙ্গে রাখার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। শুক্রবারও এই দেশে সর্বোচ্চ ১ হাজার ২৫৪টি দৈনিক নতুন মৃত্যুসহ ৩৭ হাজার ১৫৬টি নতুন করোনা কেস শনাক্ত হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার এই দেশে ১ হাজার ২৫১ জন ও বুধবার ১ হাজার ২৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে করোনায়। দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে, রাশিয়ার মাত্র ৪০ শতাংশ মানুষ করোনার দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন।

গ্রিস বৃহস্পতিবার করোনাভাইরাস-সম্পর্কিত নতুন বিধিনিষেধ ঘোষণা করেছে। যাদের এখনো টিকা দেওয়া হয়নি তাদের টিকা দেওয়ার জন্য অতিরিক্ত চাপ চাপ দেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী কিরিয়াকোস মিৎসোটাকিস বলেছেন যে তিনি বিশ্বাস করেন যে করোনার পদক্ষেপগুলো ‘যারা এখনো দ্বিধাগ্রস্ত’ তাদের মন পরিবর্তন করতে এবং টিকা নিতে সাহায্য করবে। এদিকে স্পেনে চালু করা হয়েছে ভ্রাম্যমাণ টিকাকেন্দ্র। প্রশাসন বলছে, পর্যটন মৌসুম শুরু হওয়ার পর করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গত এক সপ্তাহে সংক্রমণের হার ৫২ শতাংশ বেড়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগ।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close