পলাশ (নরসিংদী) প্রতিনিধি

  ০৬ ডিসেম্বর, ২০২০

ময়লার ভাগাড়ে পার্ক

অযত্ন অবহেলায় পড়ে থাকা দীর্ঘদিনের ময়লার ভাগাড় এখন পরিণত হয়েছে দৃষ্টিনন্দন পার্কে। ময়লার ভাগাড়ের বদলে এখানে এখন ফুলের বাগান। যে এলাকার পাশ দিয়ে হেঁটে যাওয়া যেত না, সেখানে এখন খেলছে শিশুরা। কারণ ওই পার্কে শোভা পাচ্ছে দোলনা, স্লিপার আর কারুকার্যময় কংক্রিটের তৈরি ঘোড়া, হরিণ, ক্যাঙ্গারুসহ শিশুদের বিনোদনের নানা উপকরণ।

সদিচ্ছা ও হাতের সুনিপুণ ছোঁয়ায় ময়লার ভাগাড়েও যে ফুল ফুটতে পারে সেটা দেখিয়ে দিলেন নরসিংদীর পলাশ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুমানা ইয়াসমিন। কয়েক দিন আগেও যেখান দিয়ে আসা-যাওয়ার সময়ে দূর থেকেই দুর্গন্ধে নাক চেপে ধরতে হতো। বর্তমানে সেখানে খেলছে শিশু-কিশোররা।

------
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বাসভবনের পাশেই দীর্ঘদিন ধরে জায়গাটি পড়ে ছিল। ধীরে ধীরে জায়গাটি ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়। সেখানেই ফেলা হতো উপজেলার বিভিন্ন কোয়ার্টারের ময়লা-আর্বজনা।

উপজেলা মহিলাবিষয়ক কার্যালয়ের ট্রেইনার মেহেরুন নেছা রোজা জানান, উপজেলার ভেতরেই এ ময়লা-আর্বজনা ভাগাড়। পাশেই আমাদের ব্লক-বাটিকের প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। দুর্গন্ধে ট্রেইনার ও প্রশিক্ষণার্থীদের নাক চেপে ধরে থাকতে হতো। সেখানে এখন মনোমুগ্ধকর দৃষ্টিনন্দন পার্ক, ভাবতেই ভালো লাগে।

ব্যতিক্রমী এ উদ্যোগের বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুমানা ইয়াসমিন বলেন, সারা দিন অফিসের কাজ শেষে বাসায় ফিরি। আর বাসভবনের পাশেই এ ময়লা-আবর্জনার ভাগাড়, দুর্গন্ধে টেকা দায় ছিল।

শুধু তাই নয়, উপজেলার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছেলেমেয়েদের খেলাধুলার জায়গাও ছিল না। এসব বিষয় মাথায় রেখে ব্যক্তিগত উদ্যোগে পরিত্যক্ত এ জায়গাটির ঝোপঝাড় ও ডাস্টবিনটি পরিষ্কার করে একটি পার্ক ও ফুলবাগান গড়ে তোলার কাজ শুরু করেছি।

 

"

আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়