reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ১১ অক্টোবর, ২০২১

ই-প্রতিষ্ঠান উইকম-থলের ৬ জন গ্রেপ্তার

ছবিঃ সংগৃহীত

এবার ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান উইকম ডটকম ও থলে ডটকমের ছয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে সিআইডি।গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় আড়াই কোটি টাকা আত্মসাতের মামলা করা হয়েছে। 

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন প্রতিষ্ঠান দুটির হেড অব অপারেশনস নজরুল ইসলাম, হিসাবরক্ষক সোহেল হোসেন, ডিজিটাল কমিউনিকেশন অফিসার তারেক মাহমুদ অনিক,সেলস এক্সিকিউটিভ মুন্না পারভেজ ও সুপার ভাইজার মাসুম হাসান।
এসময় প্রতিষ্ঠান দুটির অফিস থেকে ভাড়ার চুক্তিপত্র,গন্তব্য লজিস্টিকস সার্ভিস লিমিটেড এজেন্ট সংক্রান্ত চুক্তিপত্র, জুডিসিয়াল স্ট্যাম্পে লিখিত ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এগ্রিমেন্ট সংক্রান্ত চুক্তিপত্রসহ বিভিন্ন ব্যাংকের চেক, গ্রাহকদের কাছ থেকে চেক রিসিভ ইনফরমেশন সিপিউ, ল্যাপটপ, প্রিন্টার, ফটোকপি মেশিন, রেজিস্টার দুটি ও টাকা গণনার মেশিন জব্দ করা হয়।

সোমবার( ১১ অক্টোবর) দুপুরে সিআইডির প্রধান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান অতিরিক্ত উপপুলিশ মহাপরিদর্শক ইমাম হোসেন।
সিআইডি জানায়, বিজ্ঞাপনের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে ৩০ দিনের মধ্যে পণ্য সরবরাহ করার শর্তে টাকা পরিশোধ করে ভুক্তভোগীরা। কিন্তু টাকা পরিশোধের পর নির্ধারিত সময়ে পণ্য দেয়নি থলে ডটকম ও উইকমডটকম। থলে ডটকম ও উইকম ডটকমের বিভিন্ন পদে কর্মরত থাকা অবস্থায় কম মূল্যে বিভিন্ন পণ্য- টিভি, ফ্রিজ, মোটরসাইকেল, ইলেকট্রিক পণ্য বিক্রির প্রলোভন দেখিয়ে ফেসবুক পেজ ও অনলাইনের বিভিন্ন মাধ্যমে অফার দেয়।

তিনি আরো বলেন, বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয়ে মানুষ তাদের কাছ থেকে পণ্য ক্রয়ের জন্য আগ্রহ দেখায়। অর্ডার দেওয়ার এক মাসের মধ্যে পণ্য দেওয়ার আশ্বাস দিলেও অনেক ক্রেতা ৫০ দিনেও পণ্য পাননি।মাসের পর মাস তাদের মিথ্যা আশ্বাস দেওয়া হয়। 
এরপর কয়েকজন ক্রেতা মিলে তাদের অফিসে গেলে তারা তাদের কয়েকটি চেক দেন, তবে ক্রেতারা ব্যাংকে গিয়ে দেখেন ওই অ্যাকাউন্টে কোনো টাকা নেই।এরপরে ভুক্তভোগীরা মামলা করেন।
প্রতিষ্ঠান দুটি আড়াই কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে বলে প্রাথমিকভাবে আমরা ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়েছি।
 

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
ই-কমার্স,গ্রেপ্তার,সিআইডি
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close