জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

  ১১ জানুয়ারি, ২০২২

অটোরিকশামুক্ত হলো জাবি, স্বস্তিতে শিক্ষার্থীরা

ছবি : প্রতিদিনের সংবাদ

সড়ক দুর্ঘটনায় ছাত্রী আহতের জেরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা নিষিদ্ধ করেছে কর্তৃপক্ষ। ফলে বন্ধ হয়ে গেছে বিশ্ববিদ্যালয়ে বেপরোয়া চলাচলের অভিযোগ থাকা এই যানবাহনের দৌরাত্ম্য। এতে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন সচেতন শিক্ষার্থীরা।

গত বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারি) ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে ব্যাটারিচালিত রিকশাসহ এ জাতীয় কয়েকটি যানবাহন নিষিদ্ধের কথা জানানো হয়। এরপর থেকে গত কয়েকদিনে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ সড়কে অটোরিকশা সহ সেসব যানবাহন চলতে দেখা যায়নি।

ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ইঞ্জিন চালিত রিকশা, ভ্যান, ইজিবাইক, নসিমন, করিমন, ভটভটি ইত্যাদি যানবাহনের বেপরোয়া চলাচলের ফলে আশংকাজনক হারে দুর্ঘটনা ঘটছে এবং শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারি আহত হচ্ছেন। এজন্য এসব ইঞ্জিন চালিত যানবাহন পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ক্যাম্পাসে নিষিদ্ধ করা হল। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুমোদিত পায়ে চালিত রিকশা চলাচল করতে পারবে।

এছাড়া যানবাহন সংকট এড়াতে বাস সার্ভিস চালুর কথা জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে। প্রতিদিন দুইটি বাস সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত প্রতি ঘন্টায় পৃথক দুইটি রুটে চলাচল করবে বলে বলা হয়।

গত কয়েকদিন বিশ্ববিদ্যালয় ঘুরে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন সড়কেই ব্যাটারি চালিত রিকশা বা নিষিদ্ধ ঘোষিত অন্য কোন যানবাহন চলছে না। তবে হাতেগোনা কয়েকটি পায়ে চালিত রিকশা চলতে দেখা গেছে বিভিন্ন সড়কে। রোববার সকালে যাত্রী সমেত বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামনগর বাজার সংলগ্ন ফটক দিয়ে প্রবেশের অপেক্ষায় ছিল কয়েকটি রিকশা। পরে দায়িত্বরত প্রহরীর বাধায় ফিরে যায় চালকরা। তবে বিশ মাইল গেট থেকে পানধোয়া পর্যন্ত সড়কে রিকশা চলছে। বিশ মাইল গেট থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল এন্ড কলেজের মধ্যবর্তী চৌরাস্তার নিকটে কৃত্রিম ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। মূলত রিকশা সহ অন্যান্য যানবাহনের প্রবেশ ঠেকাতেই এই ব্যারিকেড সৃষ্টি করা হয়েছে। এই ব্যারিকেডের কাছেই অপেক্ষায় রয়েছে দুইটি একতলা সবুজ রংয়ের বাস। এগুলোই শিক্ষার্থীদের যানবাহনের ঘাটতি মেটাতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রদক্ষিণ করছে।

এদিকে, সম্প্রতি সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগের এক শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হন। পরে ওই শিক্ষার্থীকে আইসিইউতে নেওয়া হয়। এরপরই ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা নিষিদ্ধের জোর দাবি ওঠে। এ দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে মানববন্ধনের মত কর্মসূচিও পালন করে শিক্ষার্থীরা। এমন প্রেক্ষাপটে অটোরিকশা সহ কয়েকটি যানবাহন নিষিদ্ধ করায় স্বস্তি প্রকাশ করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপে এ নিয়ে আলোচনা চলছে বিস্তর। ব্যক্তিগত ওয়ালেও এই খবর প্রচারের পাশাপাশি উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছেন কেউ কেউ। যদিও অটোরিকশা চলাচলের পক্ষেও মত রয়েছে অনেকের।

আশরেফুল নাহার ইলা নামের এক ফেসবুক ব্যবহারকারীর মন্তব্য, “ব্যাটারি চালিত রিকশা ছাড়া রাস্তায় পায়ে হেঁটে অনেক শান্তি পাচ্ছি। ক্যাম্পাসে আগে আতঙ্ক নিয়ে হাঁটতাম। আসলেই ব্যাটারি চালিত রিকশার গতি ক্যাম্পাসের জন্য উপযোগী না।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (এস্টেট) ও মুখ্য উদ্যানতত্ত্ববিদ মো. নুরুল আমিন বলেন, এটা ভালো একটা পদক্ষেপ হয়েছে। এখন সবাই নিরাপদে রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে পারবে। পরিবেশ ভালো থাকবে। হাঁটার অভ্যাসও তৈরি হবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা আগে অটোরিকশার চলাচল নিয়ন্ত্রণের জন্য নিবন্ধন দেওয়ার চেষ্টা করেছিলাম কিন্তু আশপাশের অনেক চাপের কারণে সেটা বন্ধ করে দিতে হয়েছে। এখন পায়ে চালিত যেসব রিকশার নিবন্ধন রয়েছে, তাদের ডাকতে হবে। প্রয়োজনে পায়ে চালিত আরও রিকশার ফ্রি নিবন্ধন দিতে হবে।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জাবি,অটোরিকশা,স্বস্তি,শিক্ষার্থী
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close