ক্রীড়া ডেস্ক

  ০৫ ডিসেম্বর, ২০২০

বড় জয়ে দর্শকদের স্বাগত

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে তিন মাস নির্বাসিত থাকার পর গত জুনে মাঠে ফিরেছিল ইংলিশ ফুটবল। কিন্তু শূন্য গ্যালারির কারণে ছিল না সেই প্রাণচাঞ্চল্য। পরশু রাতে উয়েফা ইউরোপা লিগে আর্সেনাল ও র‌্যাপিড ম্যাচ দিয়ে লন্ডনের এমিরেটস স্টেডিয়ামে ফিরল সেই হইহুল্লোড়। ৪-১ গোলের বড় জয় দিয়ে দর্শকদের স্বাগত জানাল গানাররা।

আগের ম্যাচেই নকআউট পর্ব নিশ্চিত করেছিল আর্সেনাল। এবার অস্ট্রিয়ান প্রতিপক্ষকে হারিয়ে ‘বি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হওয়া নিশ্চিত করল তারা। আসরে এখন পর্যন্ত খেলা ৫ ম্যাচের সবকটিতে জিতে ১৫ পয়েন্ট তুলে নিয়েছে গানাররা।

------
পরশু অবশ্য ৬০ হাজারের বেশি দর্শক ধারণক্ষমতার স্টেডিয়ামে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল মাত্র দুই হাজার জনকে। তাদের সঙ্গে আনন্দটা ভাগাভাগি করে নিয়েছেন আলেক্সান্দার লাকাজেতরা।

ম্যাচ শুরুর আগে দর্শকদের হাততালি দিয়ে অভিবাদন জানান আর্সেনালের খেলোয়াড়রা। তাদের উল্লাসে ভাসাতে বেশি দেরি করেনি স্বাগতিকরা। দশম মিনিটে ৩০ গজ দূর থেকে অদম্য এক শটে ভিয়েনা গোলকিপার রিচার্ড স্ত্রেবিনগারকে পরাস্ত করেন লাকাজেত।

আট মিনিট পর রেইস নেলসনের কর্নার কিক থেকে দুর্দান্ত হেডে লক্ষ্যভেদ করেন পাবলো মারি। ফ্লামেঙ্গো থেকে আর্সেনালে যোগ দেওয়ার পর এটা ছিল তার প্রথম গোল। বিরতির আগে দলের তৃতীয় গোল করেন এডওয়ার্ড এনকেতিয়াহ। আর বদলি নামার কয়েক মিনিট পর এমিল স্মিথ রোভে আর্সেনালের চতুর্থ গোলটি করেন। এর আগে ৪৭ মিনিটে ভিয়েনার হয়ে একমাত্র গোলটি করেন কোয়া কিতাগাওয়া।

মাঠে এসে প্রিয় দল আর্সেনালের জয় দেখতে পেরে খুশি ২৫ বছরের ভক্ত জোসেফ। ম্যাচ শেষে গণমাধ্যমকে জানালেন সে কথাই, ‘এমিরেটস স্টেডিয়াম চালুর (২০০৬ সাল) পর থেকে আমি আসছি। কিন্তু দর্শক প্রবেশে অনুমতি না থাকায় এত দিন বাড়িতে বসেই খেলা দেখতে হয়েছে। অবশেষে আবার আসার সুযোগ পেলাম। এখানে খেলা দেখা আমার কাছে বিশেষ কিছু।’

আর্সেনালের মাঠে দর্শক ফেরার রাতে জয় পেয়েছে ইতালিয়ান জায়ান্ট এসি মিলান ও এএস রোমা। তবে হোঁচট খেয়েছে প্রয়াত ডিয়েগো ম্যারাডোনার ক্লাব নাপোলি। জিততে ব্যর্থ টটেনহামও। লাস্ক লিঞ্জের বিপক্ষে হোসে মরিনহোর দলের রোমাঞ্চকর ম্যাচটা ৩-৩ গোলে ড্র হয়েছে। অবশ্য জয় বঞ্চিত থেকেও নকআউট পর্বে পা রেখেছে টটেনহাম। তাদের সঙ্গী হয়েছে নাপোলি, মিলান ও রোমা।

 

 

"

আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়