কৃষি আইনের বিরুদ্ধে ধর্নায় পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী

প্রকাশ : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৪৭ | আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৫৯

কলকাতা প্রতিনিধি

বিতর্কিত নয়া কৃষি আইনের বিরুদ্ধে সোমবার ধর্নায় বসছেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং।

উল্লেখ্য, দেশজুড়ে কৃষক সংগঠন ও অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলির বিরোধিতা সত্ত্বেও রোববার বিলগুলিতে সই করে তা আইনে পরিণত করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। যদিও তার আগে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করে বিলগুলি সংসদে ফেরানোর আবেদন জানিয়েছিল বিরোধী দলগুলি। তাতে লাভ হয়নি। শহিদ ভগৎ সিংয়ের পৈত্রিক গ্রাম পাঞ্জাবের খটকর কলনে অবস্থান করছেন অমরিন্দর সিং।

তিনি জানিয়েছেন, কেন্দ্রের কৃষি আইন নিয়ে রাজ্যগুলি কোনো বদল আনতে পারে কিনা তা খতিয়ে দেখছেন। কৃষি আইন বিশেষজ্ঞদের পাশাপাশি এই আইনে প্রভাবিত কৃষকদের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। অমরিন্দর সিং বলেছেন, কৃষকবিরোধী আইনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেতৃত্ব দিতে প্রস্তুত তিনি। বিপজ্জনক এই আইন থেকে রাজ্যের কৃষকদের বাঁচাতে যথাসাধ্য চেষ্টা করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন অমরিন্দর সিং।       

কৃষি বিল পাশের ভোটিং-সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য প্রকাশ্যে রাখলেন রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান হরিবংশ সিং।

উল্লেখ্য, ২০ সেপ্টেম্বর বিল পাশের দিনে সংবাদমাধ্যম রিপোর্টের সঙ্গে সরকারের দাবির সামঞ্জস্য পাওয়া যায়নি। ডেপুটি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে শাসকদলের সঙ্গে মিলে অনৈতিকভাবে বিল পাশের অভিযোগ তুলেছেন বিরোধীরা। তারপরই একটি বিবৃতি দিয়ে হরিবংশ সিং জানিয়েছেন, বিলটি সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানোর জন্য ওইদিন ১টা ১০মিনিটে ডিভিশন বা ভোটাভুটির দাবি জানিয়েছিলেন ত্রিচি শিবা। বিবৃতি অনুযায়ী, একই ভিডিয়োতে দেখা গেছে ১টা ৯ মিনিটে, একজন সদস্য রুলবুক ছিঁড়ে ডেপুটিকে ছুঁড়ে দিচ্ছেন। বেশ কয়েকজন ঘিরেও রেখেছিলেন তাকে এবং কাগজ ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছিলেন। ডেপুটি চেয়ারম্যান কারোর নাম না করলেও সেসময় ডেরেক ও'ব্রায়েনকে রুলবুক হাতে দেখা গিয়েছিল। যদিও তৃণমূল সাংসদ দাবি করেছেন, তিনি রুলবুক দেখিয়েছিলেন, ছেঁড়েননি। ভোটাভুটি না করার স্বপক্ষে ডেপুটির যুক্তি, নিয়ম অনুযায়ী ডিভিশনের জন্য দাবি জানানো এবং কক্ষে স্বাভাবিক উপস্থিতির প্রয়োজন। একটি সাংবিধানিক পদে থেকে এই নিয়ম লঙ্ঘন করতে পারন না বলে জানিয়েছেন হরিবংশ সিং।

পিডিএসও/হেলাল