দিনাজপুর প্রতিনিধি

  ১৩ মে, ২০২৪

পুনর্ভবা নদী থেকে অবৈধভাবে তোলা হচ্ছে বালু 

দিনাজপুর সদরের (গোসাইপুর) সিটি পার্কের পেছনে পুনর্ভবা নদীতে অবৈধভাবে তোলা হচ্ছে বালু। ছবিতে এক্সকাভেটর (ভেকু) দিয়ে ড্রাম ট্রাকে তোলা হচ্ছে বালু ছবি: প্রতিদিনের সংবাদ  

দিনাজপুর সদরের সিটি পার্কের পেছনে (গোসাইপুর) এলাকায় পুনর্ভবা নদীর পানি শুকিয়ে যাওয়ায় বালুর চর উঠেছে। আর এই নদীর মাঝখানের বালু এক্সকাভেটর (ভেকু মেশিন) দিয়ে দিনে ও রাতে অবৈধভাবে তুলে তা বিক্রি করা হচ্ছে। এতে কোটি কোটি টাকা রাজস্ব ক্ষতির অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিন দেখা যায়, সেখানে একটি শ্মশান ঘাট রয়েছে। পাশে একটি পাকা রুম বালু বিক্রয় অফিস। বালু বিক্রির রসিদ প্রদানকারী ব্যক্তিকে প্রশ্ন করা হয়- এই বালু উত্তোলনের ইজারাদার কে? উত্তরে তিনি বলেন, ইজারাদারের নাম আমি জানি না। তবে তার নাম বলতে অস্বীকৃতি জানান ওই ব্যক্তি।

(গোসাইপুর) পুনর্ভবা নদীর খননের কাজ অনেক আগেই শেষ হয়েছে, খনন করা বালুও অনেক আগেই বিক্রি শেষ করেছেন আপনারা। ফলে পুনর্ভবা নদী (ড্রেজিং) খনন করা বালু আর নেই। সরকারিভাবে ইজারা না থাকা সত্ত্বেও শুকিয়ে যাওয়া পুনর্ভবা নদীর মাঝখানে কয়েক মাস ধরে দিনে ও রাতে (ভেকু) মেশিন দিয়ে কোটি কোটি টাকার বালু উত্তোলন করছেন কোন ক্ষমতার বলে? এ প্রশ্নের কোনো উত্তর দিতে পারেননি বালু উত্তোলন ও বিক্রয়কারী।

ট্রলিতে বালু পরিবহনকালে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চালক জানান, অলিখিত ইজারাদার দিনাজপুর সুইহারি আশ্রমপাড়া এলাকার কফিল বসাক, স্থানীয় বিপদগামীদের সঙ্গে নিয়ে অবৈধভাবে কোটি কোটি টাকার বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছেন। শুধু তাই নয়, দিনে বালু পরিবহনের জন্য ট্রলিতো রয়েছেই রাতেও ড্রাম ট্রাক দিয়ে বালু বিক্রি করছেন বিভিন্ন স্থানে।


  • কোটি কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার
  • পুনর্ভবা নদীতে বালু মহালের কোনো ইজারা দেওয়া হয়নি
  • তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া আশ্বাস অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের

দিনাজপুর জেলা প্রশাসক অফিস সূত্রে জান গেছে, দিনাজপুর সদরে পুনর্ভবা নদীতে বালু মহালের কোনো ইজারা দেওয়া হয়নি।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড, দিনাজপুর নির্বাহী প্রকৌশলী ফারুক আহম্মেদ প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, নদী (ড্রেজিং) খননের কাজ করেছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহণ কর্তৃপক্ষ। আমরা কোনো খননের কাজ এবং ভেকু মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করাচ্ছি না। সরকারি অনুমতি ছাড়া নদীর বালু উত্তোলন অবৈধ। ভেকু মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন অবশ্যই দণ্ডনীয় অপরাধ। লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহণ কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) হট লাইনে গত বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে কল করা হলে তিনি জানান, দিনাজপুরে দায়িত্বরত কর্মকর্তার নাম এবং নম্বর আপাতত পাচ্ছি না। তবে একটি নম্বর দিচ্ছি কল করেন। সব তথ্য পেয়ে যাবেন। পরে তার দেওয়া নম্বরে কল করা হলে কেউ ফোন রিসিভ করেননি।

দিনাজপুর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (উন্নয়ন ও মানব সম্পদ ব্যবস্থাপনা) দেবাশীষ চৌধুরী প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, বালু মহালের দেখাশোনার দায়িত্বে আছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, তিনি সভাপতি। খননের বালু সরানো শেষ হয়েছে কি না, শেষ হয়ে থাকলে অবৈধভাবে ভেকু মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন দণ্ডনীয় অপরাধ। অবশ্যই তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পিডিএস/জেডকে

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
দিনাজপুর,পুনর্ভবা,বালু,অবৈধভাবে,ভেকু,উত্তোলন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close