সালাহউদ্দিন শুভ, কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার)

  ১৭ এপ্রিল, ২০২৪

কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান 

দর্শনার্থীর ভিড়ে দিশেহারা লাউয়াছড়ার বন্যপ্রাণী 

প্রাণ-প্রকৃতি, প্রাণবৈচিত্র্যের জন্য সংরক্ষিত বনাঞ্চল লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান। এখানে অনেক বিরল ও বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীর বাস। বন্য প্রাণীরা এখানে নির্বিঘ্নে বিচরণ করবে, বাড়বে উদ্ভিদ ও নানা জাতের লতাগুল্ম। বনের নির্জনতা ভাঙবে শুধু পাখির, ঝিঁঝিপোকা, উল্লুকের ডাকে। কিন্তু বাস্তবতা ঠিক তার উল্টো। মানুষের উপস্থিতিতে বিঘ্নিত হচ্ছে বন্যপ্রাণীর বসবাসের পরিবেশ। মানুষের ভিড়ে আর হৈ-হুল্লোড়ে বন্য প্রাণীরা এখানে দিশাহারা। সম্প্রতি ঈদুল ফিতর ও পহেলা বৈশখের মোট ৫ দিনের ছুটিতে বহু মানুষ ছুটেছিল মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে। এসব স্থানে অন্তত ১৫-১৬ হাজার মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। ৫ দিনে শুধু টিকিট কেটেই উদ্যানে প্রবেশ করেছেন ১২ হাজার ৫৫৮ জন পর্যটক, এরমধ্যে ৯ জন বিদেশী রয়েছেন।

১১ এপ্রিল প্রবেশ করেছেন ৩ হাজার ৩৬ জন, ১২ এপ্রিল ২ হাজার ৪৬১ জন, ১৩ এপ্রিল ৩ হাজার ৩৩৪ জন, ১৪ এপ্রিল ২ হাজার ৩৬০ জন এবং ১৫ এপ্রিল ১হাজার ৩৬৭ জন। এই ৫ দিনে গাড়ী পার্কিং ফি সহ মোট রাজস্ব আদায় হয়েছে ৬ লাখ ১৩ হাজার ৫০৬ টাকা। টিকিটের হার হচ্ছে প্রাপ্তবয়স্ক ৫০ টাকা, ছাত্র ২০ টাকা এবং বিদেশি পর্যটক ৫শত টাকা।

বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের সহব্যবস্থাপনা কমিটি, পরিবেশকর্মী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঈদে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে বিপুলসংখ্যক পর্যটকের ঢল নামে। পর্যটকেরা বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে বনের ভেতরে ছুটে বেড়ান। যে যার মতো হইহুল্লোড়, চিৎকার-চেচামেচি করেন। জিপগাড়ি (চাঁন্দের গাড়ী) পিকআপ ভ্যানে ও মোটরসাইকেল হুল্লোড় করে ছুটে বেড়ান সড়কে। উদ্যান ও উদ্যানসংলগ্ন এলাকাজুড়ে উন্মুক্ত মেলার পরিবেশ তৈরি হয়, যাতে সংরক্ষিত বনের নিরিবিলি পরিবেশের পুরোটাই ভেঙে পড়ে। এতে আতঙ্কিত বন্য প্রাণী দিশাহারা হয়ে বনের গভীরে গিয়ে কোনোরকমে আত্মগোপন করে থাকে। এ ছাড়া পর্যটকেরা ইচ্ছেমতো বনের বিভিন্ন স্থানে পলিথিন ও প্লাস্টিক সামগ্রী ফেলে পরিবেশ দূষিত করছে বলেও অভিযোগ।

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান জেলার কমলগঞ্জ উপজেলাধীন একটি সংরক্ষিত বনাঞ্চল। ১৯৯৬ সালে সরকার লাউয়াছড়াকে জাতীয় উদ্যান ঘোষণা করা হয়। উদ্যানে ১৬৭ প্রজাতির গাছ, ২৪৬ প্রজাতির পাখি, ২০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী, ৫৯ প্রজাতির সরীসৃপ (৩৯ প্রজাতির সাপ, ১৮ প্রজাতির লিজার্ড, ২ প্রজাতির কচ্ছপ), ২২ প্রজাতির উভচরসহ অসংখ্য বিরল ও বিপন্ন প্রজাতির বন্য প্রাণীর আবাসস্থল ও প্রজননক্ষেত্র।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ‘লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের ভেতরে ভোর থেকে উল্লুকসহ বিভিন্ন প্রাণী ডাকাডাকি, ছোটাছুটি শুরু করে। কিন্তু এই কয়েকদিনে মানুষের ভিড়ে দিনে বন্য প্রাণীর তেমন একটা সাড়া মেলেনি। তারা বনের গভীরে নিশ্চুপ হয়ে ছিল। সহব্যবস্থাপনা কমিটির লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের নবনির্বাচিত কোষাধ্যক্ষ জনক দেববর্মা বলেন, এই কয়েকদিন মনিটরিং টিমের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। প্রচুর মানুষ এসেছে লাউয়াছড়ায় ইকো ট্যুরিজম হওয়ার কথা, থাকরেও এখন মাস ট্যুরিজম হয়ে গেছে। একদিকে বন্য প্রাণীরা ভয়ে থাকে, অন্যদিকে গাছের ডালপালা ছেঁড়া হয়। এতে বনের ক্ষতি হয়, এটা বন ও বন্য প্রাণীর জন্য মঙ্গলজনক নয়।’

পরিবেশকর্মী ও লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ইকো ট্যুর গাইড মো. আহাদ মিয়া বলেন, এই কয়েক দিন বনের পরিবেশ খুবই খারাপ ছিল। পর্যটকের ভিড়ে বন্য প্রাণীদের দেখা মেলেনি। পর্যটকরা নির্জনতার স্বাদ পাননি। মাঝেমধ্যে এত চিল্লাচিল্লিশুরু করেন, এতে বন্য প্রাণীরা দিশাহারা হয়ে পড়ে।

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের টিকিট কালেক্টর শাহীন মাহমুদ বলেন, ‘ঈদের দিন থেকে সোমবার (১৫এপ্রিল) গত ৫ দিনে ঈদ ও পহেলা বৈশাখে ছুটি থাকায় প্রচুর পর্যটক এসেছিল। সকাল ৯টা থেকে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত টিকিট বিক্রি করতে হয়েছে। এতে রেকর্ড পরিমাণ রাজস্ব আদায় হয়েছে। তবে বন্য প্রাণীরা মানুষ দেখলে ভেতরে চলে যায়।’

কমলগঞ্জ জীব বৈচিত্র কমিটির সভাপতি মানজুর আহমেদ আজাদ মান্না বলেন, ‘লাউয়াছড়ায় পর্যটকদের মূল আকর্ষণ থাকে বনের ভেতর হেঁটে হেঁটে প্রকৃতি দেখা। এরপর আদিবাসী খাসিয়া পুঞ্জিতে ঘুরে বেড়ানো। এ কয় দিন অসংখ্য পর্যটক উদ্যানের মধ্যে প্রবেশ করেছেন। বনের ভেতরের পরিবেশ-পরিস্থিতিই অন্য রকম ছিল। বন্য প্রাণীরা নীরব হয়ে গেছে। পর্যটকদের জন্য বন্য প্রাণীর দেখা পাওয়া দুষ্কর ছিল। তবে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে যাঁরা আসেন, তাঁদের অনেকে গাইড নিয়ে ট্রেইলে (ঘুরে দেখার পথ) প্রবেশ করেন না। বনের কোনো নির্দেশনা অনেকেই মেনে চলেন না।’

বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের মৌলভীবাজার রেঞ্জ কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম জানান, ‘এই কদিন খুব চাপ গেছে। দর্শনার্থী চলে এলে না করা যায় না। অনেক দূর থেকে অনেকে আসে। তারা তো ফিরে যেতে পারে না। দর্শনার্থী সীমিত করতে পারলে ভালো হতো। প্রতিদিন কতজন দর্শনার্থী ঢুকতে পারবে, তা নির্দিষ্ট করে অনলাইনে টিকিটের ব্যবস্থা করলে লোকজন আগেই জানতে পারবে ঢুকতে পারবে কি না। সেভাবে আসবে। তিনি বলেন, এক দিনে উদ্যানে কতজন পর্যটক সহনীয় এ নিয়ে কোনো জরিপ নাই। এক হাজারের জায়গায় তিন হাজার চলে আসছে।’

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close