সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

  ০১ ডিসেম্বর, ২০২৩

চলনবিলে বিভিন্ন পাখির আগমন, চলছে নিধন 

ছবি: প্রতিদিনের সংবাদ

সিরাজগঞ্জের নয়টি উপজেলা, পাবনা, নাটোর, নওগাঁ জেলার কয়েকটি উপজেলার সমন্বয়ে চলনবিল অঞ্চল গঠিত। এ মৌসুমে পানি শুকিয়ে আসায় মৎস্য ভান্ডারখ্যাত তাড়াশ চলনবিলে অতিথি পাখির ঝাঁকে ঝাঁকে আগমন ঘটছে। কিন্তু এক শ্রেণির অসাধু শিকারি ফাঁদ বিষটোপ, জাল ও খাঁচার মাধ্যমে অতিথি পাখি শিকার করছে। এভাবে পাখি শিকার করা হলেও স্থানীয় প্রশাসন নেই কোনো ব্যবস্থা।

জানা গেছে, চলনবিলের মধ্যদিয়ে প্রবাহিত হয়েছে প্রায় ১৪টি নদী ও ২২টি ছোট-বড় বিল। যদিও অনেকগুলোর অস্থিত্ব এখন আর পাওয়া যাবেনা। এই মৌসুমে পানি শুকিয়ে আসায় তাড়াশ চলনবিলের নিজের আহার জোগাতে বক, ইটালি, শর্লি, পিয়াজ খেকো, ত্রিশুল,বাটুইলা, নারুলিয়া, লালস্বর, কাঁদোখোচা, ফেফি, ডাহুক, বালিহাঁস, পানকৌড়ি, শামকৈলসহ বিভিন্ন প্রজাতির অতিথি পাখির ঝাঁকে ঝাঁকে আগমন ঘটছে। ফেব্রæয়ারির শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত এই সকল পাখি তাড়াশে বিভিন্ন মাঠে ও গাছে অবস্থান করে। সকাল থেকেই খাবারের খোজে ভিড় করে বক, বালিচোরা, পানকৈড় রাতচোরাসহ নানা প্রজাতির পাখি।

চলনবিলে বিভিন্ন জাতের পাখি দেখতে ভিড় জমাচ্ছে শিক্ষার্থী সহ আবাল বৃদ্ধ বণিতা। কিন্তু এক শ্রেণির অসাধু পাখি শিকারি সুযোগে জাল ও খাঁচার মাধ্যমে অতিথি পাখি শিকার করছে। অবাধে পাখি শিকার করা হলেও স্থানীয় প্রশাসন ব্যবস্থাই নিচ্ছে না। এতে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। প্রত্যন্ত বিলাঞ্চলের বিভিন্ন স্থানে প্রতিটি বক ৯০ থেকে ১০০ টাকা, রাতচোরা ২৫০ থেকে ৪৫০ টাকা জোড়া, বালিহাঁস ৩২০ থেকে ৬৭০ টাকা দরে বিক্রি করছে।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলাম বলেন, পাখিরা শুধু প্রকৃতির শোভা বর্ধন করে না, প্রকৃতির ভারসাম্যও রক্ষা করে। পোকামাকড় খেয়ে এরা কৃষকের উপকার করে। কিন্তু আইন থাকলেও পাখি নিধন বন্ধে তেমন কোনো পদক্ষেপ নেই। অবাধ পাখি শিকার করায় পরিবেশের ওপর প্রভাব পড়ছে, জীববৈচিত্র্য বিপন্ন হয়ে পড়েছে।

এদিকে সিরাজগঞ্জ বন বিভাগের কর্মকর্তা হাসান মাহমুদ জানায়, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইন প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে কার্যকর করার মতো সরকারি জনবল নেই। আগত মৌসুমি পাখি গুলো জনগণ সচেতন না হলে কোনোভাবেই নিধন বন্ধ করা সম্ভব নয়।

সিরাজগঞ্জ জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. হাবিবুর রহমান বলেন, পাখি সহ বন্যপ্রাণী রক্ষায় যে যার অবস্থান থেকে ভ‚মিকা রাখতে হবে। তা নাহলে আগামীতে প্রজন্মের কাছে বন্যপ্রাণীর নাম শুধু কাগজে-কলমেই থাকবে।

পিডিএস/এস

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
সিরাজগঞ্জ,চলনবিল,অতিথি পাখি শিকার
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close