মো. জহুরুল ইসলাম খোকন, সৈয়দপুর (নীলফামারী)

  ২১ মে, ২০২৪

আগরবাতির সুগন্ধিতে ভাগ্যবদল

 আগরবাতি তৈরির পর কারখানায় নেওয়ার জন্য ঝুড়িতে রাখা হচ্ছে-প্রতিদিনের সংবাদ

আগরবাতি তৈরি করে ভাগ্যের পরিবর্তন হয়েছে সৈয়দপুরের প্রায় ১০ হাজার নারীর। প্রায় দুই যুগ ধরে তৈরি হচ্ছে এই আগরবাতি। বিভিন্ন ধর্মীয় উৎসবে মন্দিও, মসজিদ ও গির্জায় জ্বালানো হয় আগরবাতি। এ ছাড়া সুগন্ধি হিসেবেও অনেকে ঘরে বা ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানেও ব্যবহার করেন পণ্যটি।

ব্যবসায়িক শহর হিসেবে খ্যাত নীলফামারীর সৈয়দপুর। ক্ষুদ্র, মাঝারি ও কুটির শিল্প রয়েছে এই শহরে। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে রয়েছে ছোট ছোট অর্ধশত কারখানা। এর মধ্যে অন্যতম হলো আগরবাতি তৈরির কারখানা। একসময় বাড়ি বাড়ি আগরবাতি তৈরি করা হতো। এখন কারখানাতেই তৈরি হচ্ছে সুগন্ধের এ পণ্য।

সরেজমিনে সৈয়দপুর শহরের পাড়া-মহল্লায় গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির আঙিনা বা দরজার সামনে বসে ছোট মেয়ে বা নারীরা কাঠের পিঁড়িতে বসে আরেক পিড়ির ওপর হাত দিয়ে ঘষে আগরবাতি বানাচ্ছেন। মাহাজনরা আগরবাতি তৈরির উপকরণ বাড়িতেই দিয়ে যান। এসব উপকরণ নিয়ে অবসর সময়ে বাড়ির নারী সদস্যরা আগরবাতি বানাতে বসে যান।

প্রতিদিন ৩ থেকে ৫ হাজার আগরবাতি বানাতে পারেন তারা। এ থেকে আয় হয় ১০০ থেকে ১৫০টাকা। এছাড়া কিছু আধুনিকতার ছোঁয়াও লেগেছে এই শিল্পে। অনেকে স্থানীয়ভাবে ছোট ছোট মেশিন কিনে সেটা দিয়েও আগরবাতি তৈরি করছেন। শহরের ২২টি বিহারি ক্যাম্পের অধিকাংশ নারীসহ উপজেলার প্রায় নারী অবসর সময়ে আগরবাতি তৈরি করে সংসার চালাচ্ছেন।

বাঁশবাড়ি এলাকার সাদরা লেনের আগরবাতি কারখানার মালিক মাসুম বলেন, আগে নারীরা হাত দিয়েই আগরবাতি তৈরি করতেন। কিন্তু যখন থেকে কারখানায় মেশিন বসিয়েছি তখন থেকে তাদের খাটনি কমে গেছে। তিনি বলেন, বর্তমানে শহরসহ উপজেলার পাড়া-মহল্লায় এমন একটা বাড়ি খুঁজে পাওয়া যাবে না, যে বাড়ির নারীরা আগরবাতি বানাচ্ছেন না। এখন তাদের খাটনি কমে গেছে, মজুরিও পাচ্ছেন ভালো।

শহরের গোলাহাট বিহারি ক্যাম্পের ফরিদা পারভীন বলেন, ‘আমরা বাড়ির কাজ শেষ করে অবসর সময়ে আগরবাতি তৈরি করি। একদিনে ২ থেকে ৩ হাজার পিস আগরবাতি তৈরি করতে পারি। মজুরি যা পাই তা দিয়ে আমরা পরিবারের সদস্যদের শখ-আহ্লাদ পূরণ করতে পারি।

ওই ক্যাম্পের বিলকিস বলেন, আগরবাতি তৈরির সঙ্গে আমি ২০ বছর ধরে জড়িত। শুরুর দিকে আগরবাতির কাঁচামাল বিভিন্ন মহল্লার নারীদের দিয়ে আসতাম। ওইসময় হাত দিয়ে তৈরি করা আগরবাতির ফিনিশিং ভালো হতো না। এখন মেশিন দিয়ে তৈরি করা আগরবাতির ফিনিশিং অনেক ভালো। এতে ব্যবহারকারির চাহিদা বেড়েছে।

সাহেবপাড়ায় আগরবাতি কারখানার স্বত্বাধিকারী শাহাজাদা বলেন, ‘সৈয়দপুরের ২২টি বিহারি ক্যাম্পের অনেক নারী আগরবাতি তৈরির সঙ্গে যুক্ত। অনেক নারী এ কাজ করে সাবলম্বি হয়েছেছেন। নিজেদের উদ্যোগে অনেকের বাসায় ছোট ছোট কারখানা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এ শিল্পে স্বল্প ঋণ সুবিধা ও সরকারি অনুদান পাওয়া পেলে ব্যবসার পরিধি বাড়ানো সম্ভব।’

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের উপব্যবস্থাপক হুসনে আরা বলেন, ‘উদ্যোক্তাদের আমরা সবসময় প্রাধান্য দিয়ে আসছি। আগরবাতির ক্ষেত্রেও কারিগরি প্রশিক্ষণসহ সবধরনের সহযোগিতার পাশাপাশি অর্থও দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
সৈয়দপুরের প্রায় ১০ হাজার নারীর আগরবাতি তৈরির সঙ্গে জড়িত
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close