নিয়ামুর রশিদ শিহাব

  ২৮ মার্চ, ২০২৩

নবীনদের পদচারণে মুখরিত বিপিআই ক্যাম্পাস

সবেমাত্র তারা এসএসসির গন্ডি পেরিয়েছে। একদল কিশোর-কিশোরীর চোখে-মুখে উচ্চশিক্ষা লাভের স্বপ্ন। আর সেই স্বপ্ন নিয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কারিগরি শিক্ষালাভের জন্য ছুটে এসেছে বরিশাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের দ্বারে। বর্তমানে অত্র প্রতিষ্ঠান নবীনদের পদচারণে মুখরিত।

নানা আয়োজন আর আনন্দঘন পরিবেশে ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষে ইনস্টিটিউটের বিভিন্ন ডিপার্টমেন্টের প্রথম পর্বের ওরিয়েন্টেশন ক্লাস অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভর্তিযুদ্ধে জয়ী হওয়া শিক্ষার্থীদের জন্য দিনটি ছিল সত্যিই অনেক আনন্দের। চান্স পাওয়ার পর প্রত্যেকেই নতুন ক্যাম্পাস নিয়ে মনে মনে আঁকতে থাকে নানা স্বপ্ন, নানা পরিকল্পনা। প্রস্তুতি নিতে থাকে ক্যাম্পাসের প্রথম দিন কীভাবে কাটাবে এবং কী করবে। প্রবীণরাও প্রস্তুতি নিতে থাকে কীভাবে নবীনদের বরণ করে নেওয়া যায়। প্রস্তুতি শেষে ওরিয়েন্টেশনের দিনেই সেটি প্রকাশ পায়। সবাই ভেসে যায় আনন্দের জোয়ারে। ক্যাম্পাস মেতেছিল উৎসবের আমেজে।

নবীন ছাত্রছাত্রীরা সকাল থেকেই ক্যাম্পাসে আসতে শুরু করে। অনেক নবীনের সঙ্গে আবার তাদের অভিভাবকদেরও দেখা গেছে। পাশাপাশি ক্যাম্পাসের প্রবীণরাও এসেছেন সাজগোজ করে নানা আয়োজনে নবীনদের বরণ করে নিতে। প্রত্যেক বিভাগে পৃথকভাবে বিভাগীয় প্রধানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় ওরিয়েন্টেশন ক্লাস। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অত্র প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মো. রুহুল আমীন, উপাধ্যক্ষ বাবু সাহা প্রমুখ।

ওরিয়েন্টেশন ক্লাসে স্ব-স্ব বিভাগের শিক্ষক ও নবীন-প্রবীণ শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। শিক্ষকরা নবীনদের ফুল উপহার দেওয়ার মাধ্যমে ক্যাম্পাসে স্বাগত জানান। এ সময় শিক্ষকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচিতিমূলক বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সব নিয়মশৃঙ্খলা মেনে চলার জন্য নবীনদের প্রতি আহ্বান জানান। প্রবীণরাও নবীনদের সঙ্গে পরিচিত হয়। নবীনবরণ অনুষ্ঠান শেষে সবাই যখন স্ব-স্ব বিভাগ থেকে বেরিয়ে আসে তখনই আনন্দের মাত্রা আরো বেড়ে যায়। সবার হাতে হাতে ফুল, সবাই একে অপরের সঙ্গে পরিচিত হচ্ছে। অনেকে ব্যস্ত নতুন নতুন বন্ধুদের সঙ্গে গ্রুপ সেলফি তোলায়। অনেকে আবার বসে পড়েছেন আনন্দ আড্ডায়। ক্যাম্পাসে পুরোটা দিন অতিবাহিত হয়েছে এমনই এক আনন্দঘন পরিবেশে। আকাশছোঁয়া স্বপ্ন নিয়ে নতুন ক্যাম্পাসে নতুন জীবনের শুরু! সত্যিই এক অন্যরকম অনুভূতি।

দক্ষিণাঞ্চলের কারিগরি শিক্ষায় অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ বরিশাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট। ‘প্রযুক্তির জন্য এসো, প্রবৃদ্ধির জন্য বেরিয়ে যাও’ এই বাক্যকে ধারণ করে ১৯৬২ সালে ফোর্ড ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে তৎকালীন পূর্ব-পাকিস্তান সরকার ৫টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করে। এর মধ্যে বরিশাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট অন্যতম। তখন তড়িৎ, পুরকৌশল ও শক্তি এই তিনটি অনুষদ নিয়ে যাত্রা শুরু করলেও বর্তমানে কম্পিউটার, ইলেকট্রনিকস, মেকানিক্যাল, ইলেকট্রোমেডিকেল ও ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি নামের অনুষদ চালু রয়েছে। সকাল-বিকেল দুই শিফটে ক্লাস হয়। ১৯৯৫ সালে

বাংলাদেশ পলিটেকনিকের মধ্য শ্রেষ্ঠ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হয়ে জাতীয় পুরস্কার লাভ করে। ২৬ একর জায়গার ওপর প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানটিতে দুটি সুউচ্চ

অ্যাকাডেমিক ভবন, ছাত্রাবাস, ছাত্রীবাস ও স্টার্ফ কোয়ার্টার রয়েছে। শিক্ষার্থী সংখ্যা সাড়ে সাত হাজারেরও বেশি। এ ছাড়া ক্যাম্পাসে রয়েছে শহীদ মিনার, ল্যাব, লাইব্রেরি, নীলদিঘি, খেলার মাঠ। এসব স্থান থেকেই নবীনরা নতুন এক স্বপ্ন পূরণের দিকে

এগিয়ে যাবে।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close