reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

পারমাণবিক হামলার হুমকি পুতিনের

ছবি : সংগৃহীত

মার্কিন বলয়ে থাকা পশ্চিমা বিশ্বকে এবার পারমাণবিক হামলার হুমকি দিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। বললেন, ইউক্রেনে সেনা পাঠালেই পারমাণবিক সংঘাতের ঝুঁকিতে পড়বে পশ্চিমা দেশগুলো। দেশটির নির্বাচনের দুই সপ্তাহ আগে প্রেসিডেন্টের বার্ষিক ভাষণে ন্যাটো দেশগুলোকে উদ্দেশ করে এ হুঁশিয়ারি দেন পুতিন।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাশিয়ার পার্লামেন্টে দেওয়া ভাষণে তিনি আরও বলেন, কেউ রাশিয়া আক্রমণ করার চেষ্টা করলে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের চেয়েও ভয়াবহ পরিণতির মুখোমুখি হবে। কারণ দেশটির কাছে এখন এমন অস্ত্র রয়েছে যা শত্রু অঞ্চলের যেকোনো লক্ষ্যবস্তুতে যেকোনো সময় আঘাত করতে সক্ষম। ১৫ থেকে ১৭ মার্চ রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। খবর তাস, আলজাজিরার।

জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে শত্রুদের লক্ষ্য করে পুতিন আরও বলেন, ‘তাদের বোঝা উচিত যে আমাদেরও অস্ত্র আছে। আমাদের কাছে এমন অস্ত্র রয়েছে যা তাদের ভূখণ্ডে আঘাত করতে পারে।’

তিনি অভিযোগ করেছেন, পশ্চিমারা রাশিয়াকে একটি নতুন অস্ত্র প্রতিযোগিতায় টেনে আনার চেষ্টা করছে। বলেছেন, পশ্চিমারা এভাবে সভ্যতার ধ্বংসের সঙ্গে সংঘর্ষের প্রকৃত হুমকি তৈরি করে।

সম্প্রতি সুইডেন এবং ফিনল্যান্ড ন্যাটোতে যোগদান করায় হুঁশিয়ারি জোরদার করেছেন পুতিন। কারণ ফিনল্যান্ডের উত্তর-পশ্চিমের সঙ্গে রাশিয়ার দীর্ঘ স্থলসীমান্ত রয়েছে। ভাষণে এ অঞ্চলে সেনা বাড়ানোর সিদ্ধান্তও জানিয়েছেন তিনি।

রাশিয়ার পারমাণবিক শক্তির ইঙ্গিতে তিনি বলেন, ইতোমধ্যেই রুশ সেনাদের কাছে সরমাট ক্ষেপণাস্ত্র সরবরাহ করা হয়েছে এবং দেশটি বেশ কয়েকটি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ অস্ত্র ব্যবস্থা নিয়েও কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বলেও জানিয়েছেন পুতিন। তবে রাশিয়ার মহাকাশে পারমাণবিক অস্ত্র স্থাপনের কথিত পরিকল্পনার অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলেছেন।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্র এবং প্রধান ইউরোপীয় মিত্ররা চলতি সপ্তাহে বলেছে, তাদের ইউক্রেনে স্থল সেনা পাঠানোর কোনো পরিকল্পনা নেই।

পুতিন আরও বলেছেন, সেনাবাহিনী তার যুদ্ধের ক্ষমতা বাড়িয়েছে এবং আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে ইউক্রেনের ফ্রন্টলাইনজুড়ে অগ্রসর হচ্ছে। রাশিয়াকে আরব ও ল্যাটিন আমেরিকার দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক জোরদার করার ইচ্ছেও জানিয়েছেন পুতিন।

বলেছেন, এ দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক জোরদার করা রাশিয়ার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ইউরোপে হামলা চালাবে রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্রের রটানো আজগুবি প্রচারণার কথাও এ সময় তুলে ধরেন পুতিন। বলেন, রাশিয়ার উন্নয়ন বন্ধ করতে এবং বিশ্বজুড়ে সংঘাতের জন্ম দিতেই এমন উসকানিমূলক অভিযোগ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। পশ্চিমারা রাশিয়াকে ভেতর থেকে দুর্বল করার চেষ্টায় হেরে গেছে।

পুতিন তার বক্তৃতায় অভ্যন্তরীণ বিষয়াদিসহ দেশের অর্থনীতির কথাও তুলে ধরেছেন। রাশিয়া ভবিষ্যতে বিশ্বের চারটি বৃহত্তম অর্থনীতির মধ্যে একটি হয়ে উঠবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন। তিনি দাবি করেছেন, তার দেশ গত বছর অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে সব জি-৭ দেশকে ছাড়িয়ে গেছে।

পুতিন আরও দাবি করেছেন, একটি সার্বভৌম, ক্ষমতাশালী রাশিয়া ছাড়া একটি শক্তিশালী বিশ্বব্যবস্থা গড়ে তোলা অসম্ভব। বন্ধুত্বপূর্ণ দেশগুলোর সঙ্গে রাজনীতিমুক্ত একটি নতুন বৈশ্বিক আর্থিক অবকাঠামো তৈরি করার পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন তিনি।

পুতিনের বক্তৃতা শুধু টেলিভিশনেই নয়, বড় ডিজিটাল স্ক্রিনেও সম্প্রচার করা হয়। সারা দেশের সিনেমা হলগুলোতেও বিনামূল্যে প্রচার করা হয়।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
পুতিন,হামলার হুমকি,পারমাণবিক অস্ত্র
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close