reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ১০ ডিসেম্বর, ২০২৩

জলবায়ু সম্মেলন

জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার বন্ধ নিয়ে মতবিরোধ অব্যাহত

সৌদি আরব, রাশিয়াসহ কয়েকটি দেশ জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার একেবারে বন্ধ করতে রাজি না

জলবায়ু পরিবর্তনের রাশ টেনে ধরতে জীবাশ্ম জ্বলানির ব্যবহার ক্রমশ কমিয়ে আনার বিষয়ে একটি প্রস্তাবিত চুক্তি নিয়ে দুবাইয়ে চলমান জলবায়ু সম্মেলনে শনিবার বিরোধে জড়িয়ে বিভিন্ন দেশ। কয়েকটি দেশ চাইছে, কপ২৮-এর আলোচনায় জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার করা বা না করা নিয়ে নয়, বরং জলবায়ু দূষণ কমিয়ে আনার বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দেওয়া হোক। তালিকায় জ্বালানি তেল উৎপাদন ও রপ্তানিকারক শীর্ষ দুই দেশ সৌদি আরব ও রাশিয়া রয়েছে।

অন্যদিকে, যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ অনেক দরিদ্র দেশ (অন্তত ৮০টি দেশ) যারা জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সবচেয়ে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে, তারা কপ২৮ সম্মেলনে একটি চুক্তি চান। যেখানে পরিষ্কার করে জীবাশ্ম জ্বালানি ব্যবহার বন্ধের বিষয়টি স্পষ্ট করে উল্লেখ থাকবে।

জ্বালানি তেল রপ্তানিকারক দেশগুলোর সংগঠনের (ওপেক) মহাসচিব হাইথাম আল গাইস বলেন, কার্বন নিঃসরন কমিয়ে আনতে আমাদের বাস্তব সম্মত পন্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন। যেটি একই সঙ্গে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে সক্ষম করে, দারিদ্র্য দূর করতে সাহায্য করে এবং স্থিতিস্থাপকতা বাড়ায়।

ওপেক গত সপ্তাহে সদস্যদেশ ও ওপেক প্লাস জোটের দেশগুলোকে একটি চিঠি দিয়েছে। কপ২৮ সম্মেলনের চুক্তিতে জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার বন্ধ নিয়ে কোনো কিছু উল্লেখ থাকলে তা প্রত্যাখান করার অনুরোধ করা হয়েছে ওই চিঠিতে।

যে চিঠির সমালোচনা করেছেন ইউরোপীয় ইউনিয়েনের জলবায়ুবিষয়ক কমিশনার উপকে হোয়েকস্ট্রা। বলেন, আমিসহ অনেকেই এটিকে অপ্রত্যাশিত এবং অসহযোগিতা হিসেবে দেখছেন। যেখানে আমাদের জলবায়ুর খুবই নাটকীয় পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ব বর্তমানে যেখানে দাঁড়িয়ে আছে, তার সঙ্গে এই চিঠি কোনোভাবেই সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়।

ওপেকের শীর্ষ তেল রপ্তানিকারক দেশ সৌদি আরব এবং সংস্থাটির অঘোষিত নেতা। আর রাশিয়া প্রভাবশালী ওপেক প্লাস গ্রুপের সদস্য। দেশ দুটির মিলিত প্রচেষ্টায় ওপেকের অনেক সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। জ্বালানি তেলের বাজার নিয়ন্ত্রণ ও মূল্য নির্ধারণে সৌদি আরব ও রাশিয়ার প্রভাব রয়েছে।

ওপেকের পক্ষ থেকে সদস্যদের জীবাশ্ম জ্বালানির বিষয়ে অবস্থান গ্রহণ নিয়ে চিঠি দেওয়ার নজির নেই। এ চিঠির মধ্য দিয়ে সংস্থাটি প্রথমবারের মতো জাতিসংঘ জলবায়ু সম্মেলনের আলোচনায় প্রভাব রাখার চেষ্টা করেছে।

গত ৩০ নভেম্বর থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে কপ২৮ সম্মেলন শুরু হয়। আগামী ১২ নভেম্বর পর্যন্ত এ সম্মেলন চলবে।

সম্মেলনে ভারত এবং চীনসহ আরো কয়েকটি দেশ জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার ক্রমশ শূন্যে নামিয়ে আনার বিষয়টি স্পষ্টভাবে সমর্থন করেনি। তবে পুনর্নবায়নযোগ্য শক্তির ব্যবহার বৃদ্ধির আহ্বানকে তারা সমর্থন করেছে। চীনের জলবায়ুবিষয়ক শীর্ষ কূটনীতিক এবারের জলবায়ু সম্মেলনকে তার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে কঠিন সম্মেলন বলে বর্ণনা করেছেন।

পিডিএস/মীর

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জলবায়ু সম্মেলন,জীবাশ্ম জ্বালানি
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close