প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ০৩ ডিসেম্বর, ২০২৩

ফিলিপিন্সে ৭.৬ মাত্রার ভূমিকম্প

কেটে গেছে সুনামির ভয়

ফিলিপিন্সের দক্ষিণের মিন্দানাও অঞ্চলে ৭ দশমিক ৬ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হানার পর জাপানের দক্ষিণপশ্চিমের উপকূলীয় অঞ্চলে সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়েছিল। স্থানীয় সময় শনিবার রাত ১০টা ৩৭ মিনিটে এ কম্পন অনুভূত হয়েছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা ইউএসজিএস। ভূমিকম্পের কেন্দ্রস্থল ছিল ফিলিপিন্সের হিনাতুয়ান শহরের ২১ কিলোমিটার উত্তরপূর্বে। ভূপৃষ্ঠের ৩২ কিলোমিটার গভীরে।

ফিলিপিন্সের সিসমোলজিক্যাল এজেন্সি-ফিভলক্স থেকে সে দেশেও সুনামির সতর্কতা জারি করে বলেছিল, স্থানীয় সময় মধ্যরাতে (জিএমটি ১৬:০০) সুনামি আঘাত হানতে পারে এবং তা কয়েক ঘণ্টা ধরে স্থায়ী হতে পারে।

যদিও পরে ইউএস সুনামি ওয়ার্নিং সিস্টেম থেকে বলা হয়, হাতে থাকা তথ্যের ভিত্তিতে বলা যাচ্ছে, এই ভূমিকম্পের কারণে সুনামি হওয়ার যে আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল, তা কেটে গেছে।

তার আগে সুনামির সতর্কতা জারি করে ফিভলক্স থেকে দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছিল, ভূমিকম্পের সময় যে নৌকাগুলো সমুদ্রে রয়েছে, সেগুলোর পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলে গভীর পানিতে থাকা উচিত। সেইসঙ্গে সুরিগাও দেল সুর এবং দাভাও অরিয়েন্টাল প্রদেশে যারা সমুদ্র উপকূলের নিকটবর্তী এলাকায় বসবাস করেন, তাদের দ্রুত নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যেতে বলা হয়েছিল।

জাপানের টেলিভিশন এনএইচকে থেকে সতর্ক করে বলা হয়েছিল, ভূমিকম্প আঘাত হানার প্রায় আধাঘণ্টা পর (জাপান সময় রবিবার ১:৩০ মিনিট এবং জিএমটি ১৬:৩০) সমুদ্র থেকে প্রায় এক মিটার উঁচু ঢেউ জাপানের দক্ষিণপশ্চিম উপকূলে উঠে আসতে পারে।

ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা যায়নি। তবে ফিভলক্স থেকে এত শক্তিশালী ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতি হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে। প্রথম ভূমিকম্পের পর ফিলিপিন্সে আরো একটি ৬ দশমিক ৪ মাত্রার শক্তিশালী পরাঘাত অনুভূত হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

উপকূলীয় শহর হিনাতুয়ানের পুলিশ প্রধান রেমার্ক জেনতালান বলেন, ‘ভূমিকম্পের পর শহর এবং আশপাশের এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।’ ‘রি অব ফায়ার’-এ অবস্থান হওয়ায় ফিলিপিন্সে নিয়মিত ভূমিকম্প হয়।

পিডিএস/মীর

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
ভূমিকম্প,ফিলিপিন্স
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close