জিন্নাতুল ইসলাম জিন্না, লালমনিরহাট

  ২৪ জানুয়ারি, ২০২৩

তিস্তার বুকে ফসলের সমারোহ

লালমনিরহাটে তিস্তা চরে চলছে মিষ্টি কুমড়ার আবাদ। ছবি : জিন্নাতুল ইসলাম জিন্না

যে তিস্তা নদী শীতে-বর্ষায় রূপ বদলায় সেই তিস্তার বুকে এখন বিভিন্ন ফসলের সমারোহ। লালমনিরহাটের তিস্তার চরজুড়ে শুধু ফসল আর ফসল। মিষ্টি কুমড়া, পেঁয়াজ, রসুন, ভুট্টাসহ বিভিন্ন ধরনের চাষাবাদ হচ্ছে তিস্তার বিস্তীর্ণ চরে। এসব ফসলের চাহিদা ও বাজার মূল্য থাকলে ভালো দাম পাবেন বলে আশাবাদী তিস্তার চরাঞ্চলের কৃষকরা।

শনিবার (২১ জানুয়ারি) সকালে তিস্তার চরে সরেজমিনে গেলে দেখা যায়, প্রতি বছরের ন্যায় এ বছর তিস্তার বুকে অনেকটা বেশি অংশজুড়ে চর পড়েছে। যে কারণে চরাঞ্চলের কৃষকরা সেই চরের পলি পড়া জমিকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন ফসল চাষ করছেন। আর হয়েছেও বাম্পার ফলন। তাই হাসি ফুটেছে তিস্তার কৃষকের ঘরে ঘরে। বন্যা মৌসুমে তিস্তা চরাঞ্চলবাসীর আহাজারি, আর শুকনো মৌসুমে বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে ফসলের সমারোহ বলে দেয় তিস্তার রূপরেখা। কৃষকরা বলছেন, তিস্তা এখন চর নয়, চর এখন গ্রামে পরিণত হয়েছে।

এ বছর তিস্তায় ১০ হাজার ৮০০ হেক্টর জমি চরে পরিণত হয়েছে। যার মধ্যে ৮ হাজার হেক্টর জমিতে ফসলের চাষাবাদ হয়েছে। যা গত বছরের থেকে ৫শ হেক্টর জমিতে বেশি চাষাবাদ হয়েছে। এসব ফসলের কাঙ্খিত বাজার মূল্য ভালো থাকলে কৃষকরা লাভবান হতে পারবে বলে লালমনির হাটের কৃষিবিভাগ নিশ্চিত করেছে।

কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, এ বছর তিস্তার চর থেকে কৃষকের ঘরে ফসলের বাজারমূল্য ও অর্থের পরিমাণ দাঁড়াবে ২৯২ কোটি ১৫ লাখ ৫৬ হাজার ১৩৭ টাকা। তবে এসব সবজি চাষে খরচ বেড়েছে দ্বিগুণ। সার, ডিজেল, আর কীটনাশকের দাম বৃদ্ধিতে নাভিশ্বাস উঠেছে কৃষকদের মধ্যে। কৃষকরা বলছেন, কৃষি বিভাগের সহায়তা পেলে এসব চরে আরো ভালো ফসল ফলানো সম্ভব।

তিস্তা চরের কৃষক সহিদার রহমান প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, এ বছর তিস্তা নদীতে চর বেশি পড়ায় অনেক কৃষক মিষ্টি কুমরো, পেঁয়াজ, রসুন, ভূট্টাসহ বিভিন্ন ধরনের চাষ করেছেন। আর এসব কৃষি পণ্যের ফলনও ভাল হয়েছে। যদি বাজার দাম ভাল পাই তাহলে দুইটা টাকার মুখ দেখতে পাবো।

রাজপুর চরের ফজল মিয়া প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, গত আমন মৌসুমে হঠাৎ বন্যার কারণে ধান ঘরে তুলতে পারি নাই। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এবার পেঁয়াজ, ভুট্টা চাষ করছি। এখন সার আর জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। তার ওপর এই আবাদ করছি দাদন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে সুদের টাকা নিয়ে। ফসল উঠলে বিক্রি করে সুদসহ টাকা ফেরত দিতে হবে। তাই সরকারের কাছে দাবি জ্বালানি তেল ও সারের দাম কমিয়ে দেওয়া হোক। পাশাপাশি সুদ মুক্ত কৃষি ঋণ আমাদের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হোক।

লালমনিরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক হামিদুর রহমান প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, গত বছরের তুলনায় তিস্তার চরে এ বছর বেশি চাষাবাদ হয়েছে। ফসলও ভালো হয়েছে। কৃষি বিভাগ থেকে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা সার্বক্ষণিক তদারকি করেছেন। আমরা আশাবাদী কৃষকরা লাভবান হবেন।

এসব এলাকার চাষিদের ক্ষতি পুষিয়ে দিতে তাদের প্রণোদনার আওতায় আনা হচ্ছে। তিস্তার চরজুড়ে ব্যাপকহারে ফসল আবাদ হচ্ছে। কৃষকরা যেভাবে ফসলের পরিচর্যা করছে তাতে এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে প্রায় ৩০ কোটি টাকার ফসল উৎপাদন হবে বলেও তিনি জানান।

পিডিএস/এমএইউ

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
লালমনিরহাট,তিস্তা,চর,সবুজ ফসল
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close