reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ০১ অক্টোবর, ২০২২

তিন জেলায় তিন হত্যাকাণ্ড

ফাইল ছবি

নরসিংদীর পলাশে এক দিনমজুরকে নিজ বাড়ির উঠানেই হাত-মুখ বেঁধে গলাকেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। মানিকগঞ্জের শিবালয়ে জমি বিরোধের জেরে অবসরপ্রাপ্ত গ্রাম পুলিশকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে বিয়ের ৩ মাসের মধ্যেই এক নববধূকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখে বলে অভিযোগ।

প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

পলাশ (নরসিংদী) : নরসিংদীর পলাশের গজারিয়া ইউনিয়নের নরসিংহারচর গ্রামে নিজবাড়ির উঠান থেকে মনির হোসেন (৪০) নামে ওই দিনমজুরের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত মনির হোসেন নরসিংহারচর গ্রামের জামাল উদ্দিনের ছেলে।

জানা গেছে, শুক্রবার রাত ১টার দিকে মনির হোসেনের মুঠোফোনে একটি কল আসে। কল পেয়ে মনির হোসেন স্ত্রী কোহিনুর বেগমের ওড়না কাঁধে দিয়ে ঘর থেকে বের হয়ে রাতে আর ঘরে ফেরেননি। ফজরের নামাজ পড়ার জন্য যখন মনির হোসেনের বাবা জামাল উদ্দিন ঘর থেকে বের হন, তখনই বাড়ির উঠানে ঘরের দরজার সামনে হাত-পা ও মুখ বাঁধা অবস্থায় ছেলে মনির হোসেনের গলাকাটা লাশ দেখতে পান। পরে বাবা জামাল উদ্দিনের আর্তচিৎকারে বাড়ির মানুষসহ আশপাশের মানুষ ছুটে আসে। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

এ বিষয়ে পলাশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ইলিয়াছ জানান, কে বা কারা রাতে ফোন করে মনির হোসেনকে ঘর থেকে বের করে নিয়ে এই ঘটনা ঘটিয়েছে তা এখনো জানা যায়নি। বিষয়টি খুবই গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করা হচ্ছে। লাশ নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

মানিকগঞ্জ : মানিকগঞ্জের শিবালয়ে জমি বিরোধের জেরে ফাইজুদ্দিন (৬৫) নামের অবসরপ্রাপ্ত গ্রাম পুলিশকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শিবালয় উপজেলার আরুয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ সালজানা এলাকায় শনিবার (১ অক্টোবর) দুপুর ১২টার দিকে ঘটনাটি ঘটে। নিহত ফাইজুদ্দিন দক্ষিণ সালাজানা এলাকার মৃত হেলাল উদ্দিনের ছেলে। তিনি আরুয়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের অবসরপ্রাপ্ত গ্রাম পুলিশ।

আরুয়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. আয়নাল মোল্লা জানান, উপজেলার আরুয়া ইউনিয়নের ৪, ৫, ৬নং ওয়ার্ডের সাবেক মহিলা মেম্বার সরলা বেগমের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল সাবেক গ্রাম পুলিশ ফাইজুদ্দিনের। এ নিয়ে আদালতে মামলাও চলছে। ওই জমি ফাইজুদ্দিনের ভোগদখলে ছিল। কিন্তু শনিবার বেলা ১১টার দিকে সরলা বেগমের ছেলে আবু তালেব ৫-৭ জন লোকজন নিয়ে ওই জমি দখল করতে আসলে ফাইজুদ্দিন বাধা দেয়। এতে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়, এক পর্যায়ে আবু তালেবসহ বেশ কয়েকজন ফাইজুদ্দিনের ওপর হামলা চলায়। হামলাকারীদের কিল ঘুষিতে ঘটনাস্থলেই ফাইজুদ্দিনের মৃত্যু হয়।

শিবালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূর এ আলম জানান, পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় শিবালয় থানার মামলার প্রস্তুতি চলছে। অভিযুক্তরা পলাতক রয়েছে।

চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) : বিয়ের ৩ মাসের মধ্যেই চৌদ্দগ্রামে ফাতেমাতুজ জোহরা (রোকসানা) ১৮ নামে এক নববধূকে হত্যা করে লাশ ওড়নাতে ঝুলিয়ে রাখা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় ওই গৃহবধূর বাবা বাদী হয়ে স্বামী সাইফুল ইসলামকে প্রধান করে ৭ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন। পুলিশ রাতেই স্বামী সাইফুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে। গত শুক্রবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সন্ধায় উপজেলার পৌর এলাকার শ্রীপুর খাঁ বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আলকরা ইউনিয়নের উত্তর কাইছুটি গ্রামের মো. আবুল বশরের মেয়ের সঙ্গে চৌদ্দগ্রাম পৌর এলাকার শ্রীপুর খাঁ বাড়ির মৃত সৈয়দ আহমেদের ছেলে মো. সাইফুলের সঙ্গে গত ১০ জুন বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই সাইফুল ও তার পরিবার যৌতুকের দাবিতে রোকসার ওপর নির্যাতন চালিয়ে আসছেন বলে অভিযোগ বড় বোন রাশেদা আকতারের। তিনি জানান, শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪টার সময় সাইফুল আমার বাবা মো. আবুল বশরের মোবাইল ফোনে কল দিয়ে বলেন, রোকসানার অবস্থা খারাপ। তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। আমরা দ্রুত চৌদ্দগ্রাম সরকারি হাসপাতালে এসে দেখি জোহরার মরদেহ পড়ে আছে। খবর পেয়ে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

জোহরার মা হোসনে আরা বেগম বলেন, বিয়ের পর দিন থেকে যৌতুকের জন্য তার মেয়ের ওপর নির্যাতন শুরু হয়। হাতের মেহেদির রং মুছে যাওয়ার আগেই আমার মেয়েকে ওরা হত্যা করল।

চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শুভ রঞ্জন চাকমা বলেন, গৃহবধূর বাবা মো. আবুল বশর বাদী হয়ে স্বামী সাইফুল ইসলামকে প্রধান আসামি করে ৭ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন। পুলিশ সাইফুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের অভিযান চলছে।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
হত্যাকাণ্ড
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close