আশিক সরকার, কামারখন্দ (সিরাজগঞ্জ)

  ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২

১৪ বছর বেগার খেটে  ঘুষ না দেওয়ায় নিয়োগ থেকে বাদ

ছবি : প্রতিদিনের সংবাদ

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার নান্দিনা কামালিয়া উচ্চবিদ্যালয়ে অর্থের বিনিময়ে বিভিন্ন পদে নিয়োগ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় একজন ভুক্তভোগী মনোয়ার বেগম সম্প্রতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অভিযোগ করেছেন। ওই বিদ্যালয়ে আয়া পদে বিনা বেতনে ১৪ বছর চাকরি করেও ঘুষের অঙ্ক কম পড়ায় স্থায়ী নিয়োগ থেকে বাদ পড়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

অভিযোগে বলা হয়, স্থায়ী নিয়োগের আশ্বাসে মনোয়ারা বেগমের কাছ থেকে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম কামাল ও প্রধান শিক্ষক মাহমুদুল আলম ঝন্টু বিদ্যালয় উন্নয়নের কথা বলে ১ লাখ ৩৫ হাজার টাকা নেন। পরবর্তীতে স্থায়ী নিয়োগের জন্য আরো ১০ লাখ টাকা দাবি করেন। সেই টাকা না দিতে পারায় তাকে বাদ দিয়ে গোপনে অন্য কাউকে নিয়োগ দেয় ম্যানেজিং কমিটি।

অভিযোগপত্র সূত্রে জানা যায়, উপজেলার নান্দিনা কামালিয়া গ্রামের মোন্নাফ ভূঁইয়ার মা মনোয়ারা বেগমকে চাকরি দেওয়ার আশ্বাসে দীর্ঘ ১৪ বছর ধরে বিনা পারিশ্রমিকে আয়া পদে কাজ করান ম্যানেজিং কমিটি। কিন্তু তার বয়স জটিলতার কারণে তিনি তার পুত্রবধূকে চাকরি দেওয়ার সুপারিশ করেন। মনোয়ার বেগমের সুপারিশে পুত্রবধূকে চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতিতে তাদের কাছ থেকে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয় উন্নয়নের জন্য ১ লাখ ৩৫ হাজার টাকা নেন। পরবর্তীতে স্থায়ী নিয়োগের জন্য আরো ১০ লাখ টাকা দাবি করলে সেই টাকা না দিতে পারায় তাকে না জানিয়ে গোপনে নিয়োগ সম্পূর্ণ করে ম্যানেজিং কমিটি।

এ ব্যাপারে নান্দিনা কামালিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহমুদুল আলম ঝন্টুর সঙ্গে তার মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে বিদ্যালয়টির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম কামাল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নিয়োগের ব্যাপারে কোনো অর্থ লেনদেন করা হয়নি। সরকারি নীতিমালা মেনেই নিয়োগ সম্পন্ন করা হয়েছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ছাকমান আলী জানান, গত ২৩ সেপ্টেম্বর নান্দিনা কামালিয়া উচ্চবিদ্যালয়ে কম্পিউটার ল্যাব অপারেটর, আয়া ও নিরাপত্তা প্রহরী পদে নিয়োগ পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়। সেখানে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নিয়োগে অর্থ লেনদেনের অভিযোগ পেয়েছি। এ ব্যাপারে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে নিয়োগে অর্থ লেনদেনের ব্যাপারে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের কেউ জড়িত নন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেরিনা সুলতানা বলেন, ‘নান্দিনা কামালিয়া উচ্চবিদ্যালয়ে অর্থের বিনিময়ে কর্মচারী নিয়োগ দেওয়ার অভিযোগ পেয়েছি। এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
কামারখন্দ
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close