টঙ্গী (গাজীপুর) প্রতিনিধি

  ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২

টঙ্গীতে প্রসূতির মৃত্যু, রাস্তা অবরোধ করে স্বজনদের বিক্ষোভ 

ছবি : প্রতিদিনের সংবাদ

গাজীপুরের টঙ্গীতে চিকিৎসকের অবহেলায় লাভলী আক্তার (২৩) নামে গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে । এ অভিযোগ প্রসূতির স্বজনদের। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে হাসপাতালের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী। হোসেন মার্কেট এলাকায় ঢাকা ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। লাভলী আক্তার এরশাদ নগর ৩ নং ব্লকের জাহাঙ্গীর মিয়ার মেয়ে এবং স্বামী মিজানুর রহমান টিটুর সঙ্গে একই এলাকার ৭নং ব্লকে বসবাস করতেন। এ ঘটনায় নিহতের স্বজনরা ময়নাতদন্তের জন্য লাশ পাঠানোর সময় ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ করেন।

জানা যায়, লাভলী টঙ্গী সরকারি কলেজের স্নাতকে লেখাপড়া করতেন। গত মঙ্গলবার সে প্রেগনেন্ট অবস্থায় গাজীপুর চৌরাস্তায় ভাওয়াল কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষা দিয়ে আসে। প্রেগনেন্ট থাকা অবস্থায় চিকিৎসক ডাক্তার সালমা নাহারের তত্ত্ববধানে ছিলেন তিনি।

লাভলীর বড় (খালাতো) বোন নাজমা আক্তার অভিযোগ করে বলেন, গত বুধবার দুপুর ১টায় হোসেন মার্কেট এলাকার ঢাকা ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে সন্তান প্রসব করানোর জন্য ভর্তি হয় লাভলী আক্তারকে। লাভলীকে অচেতন না করেই সিজার করিয়ে সন্তান প্রসব করানো হয়। কিছুক্ষণ পর অপারেশন থিয়েটার থেকে অনেক চিৎকারের শব্দ আসতে থাকে। এসময় ওটি থেকে একজন ডাক্তার এসে তার স্বামী টিটুর কাছ থেকে একটি কাগজে স্বাক্ষর নেয় এবং বলে আপনাদের রোগী ভালো আছে। পরে ওইদিন বিকেলের দিকে রোগীর অবস্থা আরো খারাপের দিকে গেলে রাতেই ধানমনন্ডির ল্যাবএইড হাসপাতালে নিয়ে যায় তার স্বামী। ভুল চিকিৎসায় লাভলী আক্তারের মৃত্যু হয়েছে এমন সংবাদ ছড়িয়ে গেলে লাভলীর স্বজন ও এলাকাবাসী বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই হাসপাতালের সামনে ভিড় জমিয়ে বিক্ষোভ করেন। পরে ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়ক গাড়ি থামিয়ে অবরোধ করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের সরিয়ে দেয়। এ সময় তারা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও কর্তব্যরত চিকিৎসকের বিচার দাবি করেন। লাভলীর স্বামী মিজানুর রহমান টিটু বলেন, ধানমনন্ডির লেভএইড হাসপাতালে নেওয়ার পর ডাক্তারা বলেন কোনো সিজারের রোগী এভাবে যন্ত্রণায় চিৎকার করার কথা না।যে চিকিৎসা করেছে সেই জানে কি করেছে রোগীকে। পরে টিটু তার স্ত্রীকে বিকেলে সাড়ে তিনটায় পুনরায় ঢাকা ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের আইসিউতে নিয়ে আসে। পরে বিকেল চারটার দিকে লাভলীর মৃত্যু হয়।

ঢাকা ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডাক্তার হাসমত আলী বলেন, যে চিকিৎসক লাভলীর সিজার করেছে সে খুব ভালো ডাক্তার। এ পর্যন্ত সে অনেক রোগীর সিজার করছে, এমন কোন ঘটনা ঘটেনি। সিজারের পর রোগীর খিচুনি শুরু হয়।

টঙ্গী পশ্চিম থানার ওসি মো. শাহ আলম বলেন, রোগীর মৃত্যু হয়েছে এমন সংবাদ পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থানে চলে আসছি। রোগী ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের ৫ম তালায় আইসিউতে চিকিৎসাধীন ছিলো। বিকেল ৪টায় লাভলী আক্তারের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
টঙ্গীতে প্রসূতির মৃত্যু,স্বজনদের বিক্ষোভ
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close