শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি

  ০৪ আগস্ট, ২০২২

শামুক কুড়িয়ে দিনে আয় তিনশ টাকা

ছবি : প্রতিদিনের সংবাদ

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে খাল-বিল, ডোবা ও জলাশয়ে শামুক কুড়িয়ে বিক্রির মাধ্যমে বাড়তি আয় হচ্ছে অর্ধশতাধিক মানুষের। তারা এসব শামুক বিক্রি করছেন দেশের বিভিন্ন মাছের খামার ও চিড়িংর ঘেরে। ৫০ কেজি ওজনের প্রতিবস্তা শামুক স্থানীয়ভাবে বিক্রি হচ্ছে ৩শ’ থেকে সাড়ে ৩শ টাকা করে। উপজেলার আলমপুর, লস্করপুর, শ্রীধরপুর ও বাড়ৈখালী এলাকায় প্রতিদিন শতশত বস্তা শামুক কেনাবেচা হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ছোট ছোট কোষা নৌকায় করে বিল থেকে শামুক কুড়িয়ে আনা হচ্ছে। একেকজন দিনের কয়েক ঘন্টায় ৩ থেকে ৪ বস্তা শামুক কুড়াতে পারছেন। হাঁসাড়া এলাকার আলমপুর এলাকায় সড়কের পাশে শামুক কেনাবেচা হচ্ছে। স্থানীয় পাইকাররা এসব শামুক সংগ্রহের পর বস্তাবন্দি করছেন।

মো. সালাউদ্দিন নামে এক ব্যক্তি বলেন, তার অধীনে ১০/১২ জন বিলে শামুক কুড়ান। প্রতিবস্তা শামুকের জন্য তাদের দিতে হয় সাড়ে ৩শ’ টাকা। প্রতিবস্তা শামুকের জন্য পাইকার তাকে ৪০ টাকা করে কমিশন দেন। গড়ে দিনে ২৫/৩০ বস্তা শামুক কেনাবেচা করেন তিনি। তার মতো অনেকেই বর্ষা মৌসুমে শামুক কেনাবেচা করেন।

বাড়ৈখালী এলাকার পায়েল, হাসেম ও স্বপন জানান, এসব শামুক ট্রাকে করে খুলনার বিভিন্ন চিড়িংর ঘের মালিকদের কাছে বিক্রি করা হয়। ঘের মালিকরা এগুলো প্রক্রিয়াজাত করে চিড়িংর খাবার তৈরি করেন। বর্ষা মৌসুমে এলাকায় তেমন কোনো কাজ না থাকায় শামুকের বাণিজ্য করছেন তারা। অপরদিকে বিনা পুঁজিতে এলাকার অনেকই বাড়তি আয়ের জন্য বিভিন্ন জলাশয়ে শামুক কুড়াচ্ছেন।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
শামুক কুড়িয়ে,দিনে আয়,তিনশ টাকা
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close