কালিহাতী (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

  ২৭ মে, ২০২২

কালিহাতীতে দুই গ্রামের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১৫

ছবি : প্রতিদিনের সংবাদ

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত ও উভয়পক্ষের ১৫ জন আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় আশঙ্কাজনক অবস্থায় শিহরাইল গ্রামের নুরু মিয়াকে ঢাকায় রেফার্ড করেছেন চিকিৎসক।

নিহত জহিরুল ইসলাম আকাশ (৩০) পাইকড়া ইউনিয়নের শিহরাইল উত্তরপাড়া গ্রামের সাইফুল ইসলামের ছেলে।

শুক্রবার (২৭ মে) সকালে উপজেলার পাইকড়া ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এঘটনায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

গোপালপুর গ্রামের শম্ভু, রাসেল, সোহেল, মোয়াজ্জেম বলেন, সকাল ১১টায় শিহরাইলের জালার মেম্বারের নেতৃত্বে আলফাজ, করিম, (নিহত) জহিরুল ইসলাম আকাশ, শরিফুল, আসলাম, নুরু, মঞ্জুসহ আরও ১০/১২ জন দা, রামদা, শাবল সহ অন্যান্য ধারালো অস্ত্র নিয়ে আমাদের গ্রামের বর্তমান ইউপি সদস্য ফরমানের ওপর হামলা করে তাকে এলোপাথাড়ি কুপয়ে জখম করে, মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। এসময় তারা ছোটন, শহীদ, লতিফ, ইজ্জত, নূর আলম, শরিফুলকে মারধর করে ৪/৫ জনের মাথা ফাঁটিয়ে ফেলে মারাত্মক আহত করে। এরপরও তারা শিহরাইল মোড়ে আমাদের গ্রামের বলরাম সেলুনে তাকে ও তার ছোট কর্মচারীকেও মারধর করেন।

শম্ভু ও রাসেল বলেন, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে দশটায় গোপালপুর (নতুন) পাইলট বাজারে কম্পিউটারের সাউন্ড বক্সে উচ্চ শব্দে গান বাজানোর অজুহাতে শিহরাইলের আাজিজুল আমাদের রাসেলের গায়ে গরম চা ঢেলে দেয়। তখনও ওরা একত্র হয়ে আমাদের গ্রামের লোকজনকে মারধর করেন।

এঘটনার জেরে শুক্রবার সকালে শিহরাইল গ্রামের লোকজন মিলে গোপালপুরে এসে মেম্বারসহ আমাদের গ্রামের লোকজনকে মারার সময় গ্রামের লোকজন এগিয়ে আসলে সংঘর্ষ হয়।

শিহরাইল গ্রামের আহত আাজিজুল বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে গোপালপুর গ্রামে একটি দোকানে বসে চা খাওয়ার সময় কম্পিউটারের সাউন্ড বক্সে উচ্চ শব্দে গান বাজাতে মানা করলে গোপালপুর গ্রামের লোকজন আমাদের কয়েকজকে মারধর করেন। এতে আমি আহত হয়ে রাতেই হাসপাতালে ভর্তি হই। শুক্রবার সকালের ঘটনা আমি জানি না।

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের সেবক (নার্স) সেলিম বলেন, এ মারামারির ঘটনায় হতাহত সকলেই আজ (শুক্রবার) সকাল দশটায় ভর্তি হয়েছেন।

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. তানভীর আহাম্মেদ বলেন, হাসপাতালে আনার পথেই জহিরুল ইসলাম আকাশ মারা যান। বাম পায়ে আঘাতের জায়গায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণেই সম্ভবত তার মৃত্যু হয়েছে, ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেলে বিস্তারিত বলা যাবে।

কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা আজিজুর রহমান জানান, এঘটনায় এখনও কোনও অভিযোগ পাওয়া যায়নি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
সংঘর্ষ,মৃত্যু
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close