রাজাপুর (ঝালকাঠি) প্রতিনিধি

  ২২ মে, ২০২২

মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে

ছবি : প্রতিদিনের সংবাদ

ঝালকাঠির রাজাপুরে মিথ্যা মামলায় হয়রানি, প্রতারণা, রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে স্বার্থ উদ্ধার এবং মাদ্রাসায় দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ এনে জীবনদাসকাঠি এন.এ.এস দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি মো. আবুল কালাম আজাদ এর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী কয়েকটি পরিবার।

রবিবার (২২ মে) বেলা ১১ টার দিকে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা মিলনায়তনে উপস্থিত হয়ে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তারা এ অভিযোগ করেন। এ সময় ভুক্তভূগী পরিবারের সদস্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলার জীবনদাসকাঠি এলাকার নিরু বেগম, রাবেয়া বেগম, নাজমির সাহানা ও নিজ গালুয়ার লিলি বেগম, সুমনা অমিন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তেব্য তারা জানায়, গত ১৫ বছর থেকে প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে অবৈধ অর্থের মালিক হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা আবুল কালাম আজাদ। জীবনদাসকাঠি এনএএস দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি আব্দুল শুক্কুর আকনকে ভয়ভীতি দেখিয়ে এই নেতা নিজেই ঐ মাদ্রাসার সভাপতি হন। মাদ্রাসার করণিক রফিকুল আলমকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করিয়ে নিজের ভাবী রুবিনাকে ঐ পদে নিয়োগ দেন। ঐ মাদ্রাসার ভবন নিজের বাড়ির সামনে করতে বিভিন্ন প্রতারণার আশ্রয় নেন। রাজনৈতিক প্রভাব দেখিয়ে ঐ মাদ্রাসার বর্তমান সুপার মো. শাহ-জালালকে দিয়ে মাদ্রাসায় দুর্নীতি চালিয়ে আসছেন। দুর্নীতির প্রতিবাদে গত ১৮ মে স্থানীয় অভিবাবক মহল মাদ্রাসার এই সভাপতি আবুল কালাম আজাদ ও মাদ্রাসা সুপার শাহ-জালালের অপসারণ চেয়ে মানববন্ধন করেন। মাদ্রাসা সভাপতির দুর্নীতি ও সুপারের দোষ ধামা চাপা দিতে স্থানীয় খলিলুর রহমানকে দিয়ে ঐ মানববন্ধনে অংশ নেওয়া অভিবাবকদের বিরুদ্ধে থানায় দলীয় প্রভাব দেখিয়ে ১২ জনকে আসামি করে মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন। এমতাবস্থায় ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা এই মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ উল্লেখিত সকল বিষয়ে সুষ্ঠ তদন্ত করে এই আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালাম আজাদ এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

আবুল কালাম আজাদ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, একটি মহল সমাজে আমাকে হেয়পতিপন্ন করতে এ রকম প্রচারণা করছে।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
রাজাপুর,আওয়ামী লীগ,প্রতারণা
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close