কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

  ২৫ জানুয়ারি, ২০২২

৩২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতু কাজে আসছে না চরবাসীর  

কুড়িগ্রামে প্রায় ৩২ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুর সংযোগ সড়ক না থাকায় বছর ধরে অকেজো অবস্থায় পড়ে রয়েছে। চরবাসীর যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের লক্ষ্যে সেতুটি নির্মাণ হলেও শুধুমাত্র সংযোগ সড়কের অভাবে পানির উপর ঝুলে আছে চরবাসীর জেলা শহরের সাথে যোগাযোগের একমাত্র সেতুটি। দীর্ঘ বছরে সংযোগ সড়ক না থাকায় বন্যা মৌসুমে চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়েন এখানকার হাজারো মানুষ।

কুড়িগ্রাম সদর প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস জানায়, সদর উপজেলার মোগলবাসা ইউনিয়নের সিতাইঝাড় গ্রামের হাদের গোয়ালের বাড়ির পেছনে ত্রাণ পুনর্বাসন কেন্দ্রের অর্থায়নে ৩১ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয় এই সেতু। ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে কুড়িগ্রাম সদরের মোগলবাসা, পাঁচগাছি বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের মানুষের চলাচলের জন্য নির্মিত হয় ১৮ ফুট দৈর্ঘ্যরে এই সেতু। সেতু হওয়ায় তিন ইউনিয়নের মানুষের মধ্যে স্বস্তি আসে। আশে পাশে গড়ে ওঠা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাট-বাজারে যাতায়াতের সুবিধা হওয়ার কথা। কিন্তু উদ্বোধনের কিছুদিন আগেই ২০১৮ সালের বন্যায় পানির তোড়ে সেতুটির দুপাড়ের সংযোগ সড়ক ভেঙে যায়। ফলে জনসাধারণের চলাচলের জন্য অনুপযোগী হয় ওঠে সেতুটি। এতে করে এলাকাবাসী পড়েছে চরম ভোগান্তিতে। উপায় না পেয়ে প্রতি বছরই পানির ওপর বাঁশের সাঁকো তৈরি করে পারাপার হতে হয় গ্রামবাসীর। এভাবেই কেটে গেছে দীর্ঘ ৪টি বছর।

এলাকার বাসিন্দা রুহুল আমিন বলেন, নয়ারহাট বাজার, মাদ্রাসা, স্বাস্থ্য কেন্দ্র নয়ারহাট উচ্চ বিদ্যালয়ে যাতায়াতকারীরা এই রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করেন। বার বার জনপ্রতিনিধি এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর অভিযোগ করেও চরবাসীর দুর্ভোগের প্রতিকারে কেউ এগিয়ে আসে নাই।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. ফিজানুর রহমান বলেন, মোগলবাসা ইউনিয়নের সিতাইঝাড় সেতুটি বন্যার পানিতে সংযোগ সড়ক বিছিন্ন হয়েছিল। গত বছরে সংযোগ সড়ক সংস্কারের জন্য কাজ করা হয়। আমরা আবারো সংযোগ সড়ক তৈরির প্রস্তুতি নিচ্ছি। আশা করি খুব শীঘ্রই কাজ শুরু হবে

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
চরবাসী,সেতু
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close