উজ্জ্বল নাথ, হাটহাজারী (চট্টগ্রাম)

  ২১ জানুয়ারি, ২০২২

হাটহাজারীতে যত্রতত্র গড়ে উঠেছে অবৈধ করাত কল

ছবি : প্রতিদিনের সংবাদ

চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে বন ও পরিবেশ আইন লঙ্ঘন করে যত্রতত্র গড়ে উঠেছে অবৈধ করাত কল। বন বিভাগের যথাযথ তদারকি ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের অভাবে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় করাতকল গড়ে উঠেছে। সরকারি নিয়মনীতি না মেনে কোন ধরনের ছাড়পত্র ও লাইনেন্স ছাড়াই এসব করাত কল স্থাপন করা হয়েছে।

জানা যায়, হাটহাজারী উপজেলার আওতাধীন প্রায় ৪০টি করতকল রয়েছে। এসব করাতকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মহাসড়ক ও বনের পাশে লাইসেন্স ও ছাড়পত্রবিহীন অবৈধ করাত কল স্থাপন করা হয়। বন আইন অনুযায়ী বন বিভাগের ১০ কিলোমিটারের মধ্যে করাত কল স্থাপনে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও এই আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে উপজেলার ফরহাদাবাদ, নাজিরহাট, কাটিরহাট, মনিয়াপুকুর,বালুরটাল, এনায়েতপুর, সরকারহাট, মুছারদোকান সংলগ্ন কলঘর, চারিয়া, হাটহাজারী পৌরসভায়, ইছাপুর, নন্দীরহাট, আমান বাজার, মদুনাঘাট, শিকারপুর ইউনিয়নসহ বিভিন্ন এলাকায় রয়েছে বহু অবৈধ করাত কল।

স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিদের প্রভাব ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রয়োজনীয় নজরধারী না থাকায় এ উপজেলায় অবৈধ করাত কলের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার ফলে হুমকির মুখে পড়েছে পরিবেশ এবং ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে বনাঞ্চল। অবৈধ করাত কল গুলোর বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান না থাকায় সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েক জন কল মালিক বলেন, মিল চালানোর জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন করা হয়েছে। এরমধ্যে এক দপ্তর থেকে অনুমোদন পাইলেও অন্য দপ্তর থেকে অনুমোদন পাওয়া যায় না। স্থানীয় বন বিভাগের সাথে দফারফার মাধ্যমে গোপন সমঝোতা করে করাত কলগুলো চালানো হচ্ছে। এজন্য বন বিভাগকে মাসিক কিংবা সাপ্তাহিক নজরানা দিতে হয়। অবশ্য বন আইন অনুসারে এই উপজেলায় যেসব স্থানে করাত কল স্থাপন করা হয়েছে সেখানে কোন অবস্থায় করাত কল করা যাবে না বলে ও তিনি উল্লেখ করেন।

এদিকে হাটহাজারী রেঞ্জ বন বিভাগের কর্মকর্তা মো. ফজলুল কাদের চৌধুরী বলেন, হাটহাজারীতে কিছু করাত কলের বৈধ লাইসেন্স রয়েছে। করাত কলের অনুমোদন থাকলেও মেয়াদ নাই এবং অবৈধ করাত কল গুলোর বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হবে। মাসোয়ারার মাধ্যমে করাত কল পরিচালিত হচ্ছে এমন প্রশ্ন গণমাধ্যম কর্মীদের পক্ষ থেকে করা হলে তিনি তা অস্বীকার করেন।

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিদুল আলম বলেন, করাতকল চালানোর কাগজপত্রের বৈধতা যাচাই বাছাই করা হবে এবং অবৈধ করাত কলের বিরুদ্ধে শীঘ্রই অভিযান পরিচালনা করা হবে বলে তিনি জানান।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
হাটহাজারী,করাত কল
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close