কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি

  ১৭ জানুয়ারি, ২০২২

কমলগঞ্জে ঢোরা সাপ ও বন বিড়াল উদ্ধার

মৌলভীবাজার কমলগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের দক্ষিণ বালিগাঁও বটতলা এলাকা থেকে সোমবার (১৭ জানুয়ারি) দুপুর ২টায় একটি বিষাক্ত ও বিষধর লাল গলা ঢোরা সাপ আহত অবস্থায় উদ্ধার করেন জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটি কমলগঞ্জ’র সাধারণ সম্পাদক মো. আহাদ মিয়া। পরে বন বিভাগকে অবগত করে কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া স্টুডেন্ট ডরমিটরি সংলগ্ন বনে অবমুক্ত করা হয়।

এদিকে সোমবার বিকাল সাড়ে ৪টায় কমলগঞ্জের রহিমপুর ইউনিয়নের আতুরঘাট এলাকা থেকে একটি বন বিড়াল উদ্ধার করা হয়,পরে সেটা জানকিছড়া এলাকায় অবমুক্ত করা হয়।

সাপ বিশেষজ্ঞরা জানান, লাল গলা ঢোরা সাপটি বাংলাদেশ সহ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের অধিকাংশ জায়গাতেই দেখা যায়। এই সাপটি আমাদের দেশীয় অন্যতম একটি বিষধর এবং বিষাক্ত সাপ। বাংলা নাম লাল গলা ঢোরা সাপ এবং সাপটির ইংরেজি নাম Red Necked Keelback। সাপটি একই সাথে Venom এবং Poison দুটোই বহন করে। এই সাপগুলোর ঘাড়ের লাল অংশ থেকে একধরনের বিষাক্ত তরল নিসৃত বেড় করতে পারে যা কিনা পোকামাকড় সহ ছোট প্রাণী মারতে সক্ষম। এই বিষাক্ত নিসৃত মানুষেরও কিছুটা ক্ষতি করতে সক্ষম তবে কিন্তু প্রাণ নাশের জন্য যথেষ্ট নয়। লাল গলা ঢোরা সাপের মুখে কোনো সুগঠিত বিষদাঁত অর্থাৎ ঋধহম নেই তবুও এই সাপ তার মুখের পেছনের সারির দাঁত গুলো দিয়ে শিকারের ওপর বিষ ঢালতে সক্ষম। এই সাপের এন্টিভেনাম আমাদের দেশে নাই। যেহেতু এদের বিষদাঁত সুগঠিত নয় তাই কামড়ের সময় বিষ ঢালতে অনেক বেগ পেতে হয় এবং তা তুলনামূলক সময় সাপেক্ষ।

লাউয়াছড়া রেঞ্জ বন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম জানান, ‘খবর পেয়ে আমার জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটি কমলগঞ্জের সাধারণ সম্পাদক মো. আহাদ মিয়া ও আমরা বন বিভাগ সাপটি উদ্ধার করি এবং কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া স্টুডেন্ট ডরমিটরি সংলগ্ন বনে অবমুক্ত করি। পরে সেখান থেকে গিয়ে কমলগঞ্জ উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের আতুরঘাট এলাকায় একটি বাড়িতে একটি বন বিড়াল আটক করে রাখা হয়,পরে স্থানীরা খবর দিলে আমরা সেখান থেকে বন বিড়ালটি উদ্ধার করে কমলগঞ্জের জানকিছড়া বনে অবমুক্ত করি।’

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
কমলগঞ্জ,ঢোরা সাপ,বন বিড়াল
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close