ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

  ২১ নভেম্বর, ২০২১

ধর্ষণের সালিশে গিয়ে আসামি হলেন ইউপি সদস্য!

ফাইল ছবি

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে ধর্ষণের অভিযোগে এক যুবকসহ স্থানীয় ইউপি সদস্য এমদাদকে আসামি করে রবিবার (২১ নভেম্বর) থানায় মামলা করেছে ওই তরুণী। অভিযুক্ত ধর্ষক উপজেলার রাজিবপুর ইউনিয়নের বিলখেরুয়া গ্রামের আব্দুল মোতালেবের ছেলে আবু তালেব ওরফে পিনু মিয়া (৩০)।

জানা যায়, তরুণী মা-বাবার সাথে গাজীপুরে জয়নার বাজার এলাকায় একটি টেক্সটাইলে চাকরি করতেন। চাকরি অবস্থায় নিজ গ্রামের পিনু মিয়ার সাথে তার মোবাইলে পরিচয় হয়।

পরিচয়ের পর থেকেই পিনুমিয়া প্রায় সময় বিয়ের প্রস্তাব দিতো। এক পর্যায়ে পিনু বিয়ের আশ্বাসে তাকে গাজীপুর থেকে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসে। পরে ১৪ নভেম্বর তরুণীর গ্রামের বাড়িতে রাতে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ করে। তার পর বিয়ের কথা বললে পিনু অপারগতা প্রকাশ করে।

পরদিন ১৫ নভেম্বর এ বিষয়ে থানায় মামলা করতে চাইলে তাকে ও তার পরিবারকে বাঁধা প্রদান করে স্থানীয়ভাবে সমাধানে করা হবে বলে ইউপি সদস্য এমদাদ আশ্বাস দেন।

পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে চার দফায় সালিশ করে কোন সমাধান দিতে পারলে ওই পরিবারকে ৮০ হাজার টাকা দিয়ে ঘটানাটি সমাধান করতে চেয়েছিল। কিন্তু তরুণীর পরিবার সেটা মেনে না নেওয়ায় ওই মেম্বার মামলা করলে ভাল হবে না বলে হুমকি দেন।

তারপর পরিবারটি স্থানীয় চেয়ারম্যানের কাছে গেলে চেয়ারম্যান থানায় যাওয়ার কথা বলেন। পরে শনিবার (২১ নভেম্বর) দুপুরে তরুণী বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মেম্বারসহ মোট ৪জনকে আসামি করে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল কাদের মিয়া বলেন, ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
ঈশ্বরগঞ্জ,ময়মনসিংহ
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close