তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি

  ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১

সেবা নিতে ভাড়ায় চালিত মাইক্রো গাড়ি

তাড়াশ হাসপাতালের ৩ টি অ্যাম্বুলেন্স’ই নষ্ট

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলা ৫০ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগী বহনের জন্য রয়েছে তিনটি অ্যাম্বুলেন্স। তবে, দীর্ঘদিন ধরে নষ্ট থাকায় সেবা পাচ্ছেন না ভুক্তভোগীরা।

তাইতো বাধ্য হয়ে জীবন বাঁচাতে জরুরি রোগীদের অতিরিক্ত অর্থ দিয়ে ভাড়ায় চালিত মাইক্রো গাড়ি নিয়েই যেতে হচ্ছে শহরের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে। অপরদিকে ১৫ বছর ধরে অকেজো এক্সরে মেশিন। কাগজ-কলমে ৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল হলেও গত ৯ বছর ধরে ৩১ শয্যার হাসপাতালের সামগ্রী ও লোকবল দিয়েই চলছে চিকিৎসা কার্যক্রম। আর এসব কারণেই প্রকৃত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন উপজেলার প্রায় তিন লক্ষাধিক মানুষ।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ১৭ জন চিকিৎসক পদের বিপরীতে কর্মরত রয়েছে মাত্র ৫ জন। এতে চিকিৎসা সেবা হতে বঞ্চিত হচ্ছে সাধারণ জনসাধারণ। প্রায় ১৫ বছর ধরে হাসপাতালের এক্সরে মেশিনটি অকেজো থাকায় এক্সরে টেকনোলজিস্ট পদটি শূন্য। এরপরও চলছে নতুন মেশিনের তোড়জোড়।

হাসপাতালে দুইটি আল্ট্রাসনোগ্রাম মেশিন থাকলেও কোনো সনোলজিস্ট নেই। অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে থাকায় বেশিরভাগ যন্ত্রই নষ্ট হওয়ার পথে। এতে সরকারের লক্ষ্য লক্ষ্য টাকা জলে যেতে বসেছে। বাধ্য হয়ে অতিরিক্ত টাকা খরচ করে যেতে হচ্ছে শহরের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে। হাসপাতালের এহেন বেহাল অবস্থার পরিবর্তনের জন্য আঞ্চলিক ও জাতীয় পত্রিকায় বার বার সংবাদ পরিবেশন হলেও অদ্যবদি কোন পরিবর্তন হয়নি।

ভুক্তভোগী সেবাগ্রহিতা বাবুল শেখ জানান, হাসপাতালে কোন অ্যাম্বুলেন্স নেই। ফোন করলে বলে অ্যাম্বুলেন্সটি নষ্ট। তাই জরুরি প্রয়োজনে বাধ্য হয়ে বেশি টাকায় ভাড়ায় চালিত গাড়ি নিতে হয়।

এ নিয়ে ফেসবুকে ৩১ আগষ্ট আবেগঘণ স্ট্যাটাস দিয়েছেন তাড়াশ সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বাবুল শেখ। তিনি লিখেছেন, অসুস্থ মাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য যখন অ্যাম্বুলেন্স প্রয়োজন ঠিক সে সময় তাড়াশ হাসপাতালে সরকারি একটি অ্যাম্বুলেন্স নাই। সেবার মান সর্ব নিন্মে।

 এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. জামাল মিঞা শোভন বলেন, একটি এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসিং করার জন্য দু’একদিনের বগুড়া পাঠানো হবে। 

পিডিএসও/এসএমএস

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
তাড়াশ,হাসপাতাল,অ্যাম্বুলেন্স
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close