টুঙ্গিপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি

  ২২ জুন, ২০২১

‘মরতি মরণ তো আমাগে’

`করুনা করুনা কইরে মানুষ মরতিছে। এরপরে বৃষ্টি বৃষ্টি কইরে এমনিতেই ইনকাম নাই তারপর আবার লকডাউন। আমাগে গরিবের কথা কেউ ভাবে না। যারা দামি গাড়িতে ঘোরে, যাদের খাওয়া-দাওয়ার কোন চিন্তা নাই তাগে তো ভালোই চলে কিন্তু মরতি মরণ তো আমাগে। একদিন ভ্যান নিয়ে না বাইর হলি খাওয়া জোটে না। তিন ছেলে-মেয়ে ও বউ নিয়ে এমনিতেই কষ্টে আছি। ভ্যান নিয়ে বাইর না হলি খাবো কি। এভাবেই আক্ষেপ করে কথাগুলো বলছিলেন গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলার গওহরডাঙ্গা গ্রামের ভ্যানচালক রবিউল ইসলাম।

মঙ্গলবার সকাল ৬ টা থেকে ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে গোপালগঞ্জ জেলার সার্বিক কার্যাবলি ও চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে সরকার। এ সময় শুধু জরুরি সেবা ছাড়া সবকিছু বন্ধ থাকবে। সোমবার এক প্রজ্ঞাপনে একথা জানানো হয়েছে। সরকার ঘোষিত লকডাউন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ইতিমধ্যে টুঙ্গিপাড়া উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হয়েছে। তাই লকডাউন ঘোষণায় রুটি-রুজি নিয়ে চিন্তিত উপজেলার গরিব ও দরিদ্র মানুষেরা।

সরজমিনে উপজেলার বাসস্ট্যান্ড ও পাটগাতী বাজারে দেখা যায়, লকডাউনের প্রথম দিনে দূরপাল্লার গাড়ি না চললেও সরকারি বিধি নিষেধ অমান্য করে কাজে বেরিয়েছে মাহেন্দ্র, ইজিবাইক ও ভ্যান চালকেরা। এছাড়া চায়ের দোকানসহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে বসে আছে বিক্রেতারা।

পাটগাতী ইউনিয়নের কাকইবুনিয়া গ্রামের মঙ্গল বিশ্বাস বলেন, কয়েকদিন ধরে বৃষ্টির জন্য এমনিতেই আয় রোজগার নাই, তারপর আবার লকডাউন। যদি ভ্যান চালায়ে আয়-রোজগার না করতে পারি তাহলে স্ত্রী ছেলে-মেয়ে নিয়ে খাব কি।

শ্রমিক বাবলু শেখ বলেন, লকডাউনে যারা বড়লোক তাদের কোন চিন্তা নাই। কিন্তু পরিবার নিয়ে চিন্তা তো আমাদের।

পাটগাতী বাজারের চায়ের দোকানদার মান্নান শেখ বলেন, রাতে মাইকিং করে বলল সবকিছু বন্ধ থাকবে। যদি দোকান বন্ধ করে রাখি তাহলে খাবো কি। তাই বাধ্য হয়েই দোকান খুলেছি। যদি সরকার আমাদের খাবারের ব্যবস্থা করে তাইলে দোকান বন্ধ রাখতে কোনো অসুবিধা নাই।

টুঙ্গিপাড়ার ভারপ্রাপ্ত ইউএনও দেদারুল ইসলাম বলেন, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের উপসচিব স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপন পেয়েছি। সে অনুযায়ী মাঠ পর্যায়ে কাজ করা হচ্ছে। কিন্তু ত্রাণ দেয়ার বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো নির্দেশনা পাইনি।

পিডিএসও/ জিজাক

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
লকডাউন,করোনাভাইরাস,ভ্যানচালক
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close