মো. মনিরুজ্জামান, ভূরুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম)

  ২৬ জানুয়ারি, ২০২১

দুধকুমার নদীর চরে সবুজের সমারোহ

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার দুধকুমার নদীর বিস্তীর্ণ চরাঞ্চলের ফসলের আবাদ হয়েছে। দেখা যাচ্ছে সবুজের সমারোহ। দেখে বোঝার উপায় নেই যে, গত কয়েক মাস আগেও দুধকুমার নদীর তাণ্ডবে গৃহহীন হয়েছে কয়েকশত পরিবার। নদীর দুকুল উপচিয়ে পানি বন্দি হয়ে পড়েছিল হাজার হাজার মানুষ। গত বছরে চতুর্থ দফা বন্যায় ও ভাঙনের স্রোতে জমা পড়েছে পলিমাটি। তাতেই উর্বর আবাদি জমিতে পরিণত হয়েছে নদীর বুকে জেগে ওঠা চর। সেখানে বিভিন্ন ফসল ফলিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে চাইছেন নদীভাঙা মানুষ গুলো।

বর্ষা মৌসুমে নদী ভাঙনের কবলে পড়ে বাপ-দাদার বসতভিটা হারায় চরাঞ্চলের মানুষ। জীবন ও জীবিকার লড়াইয়ে বিভিন্ন স্থানে চলে যায় অনেক পরিবার। জেগে ওঠা সেই চর এবার আশার সঞ্চার ঘটিয়েছে। চরের বুকে ফসলের আবাদ শুরু করেছেন চরের বাসিন্দারা।

এবারও নিজের বুকটাকে যেন উজাড় করে দিয়েছে দুধকুমার নদীর চর। তাই বালুর চরও এরইমধ্যে শস্য শ্যামলা হয়ে উঠেছে। যেন দুধকুমারের বুকে সবুজের হাতছানি। সেখানে রীতিমতো চাষ হচ্ছে শীত কালীন শাক সবজি সহ নানা ধরণের ফসল। চরে সবজি চাষ করে অনেক পরিবার স্বাবলম্বী হয়ে উঠছে। সরিষা, গম, ভুট্টা, মিষ্টি কুমড়া, কালোজিরা, আলু, মরিচ, গম, পেঁয়াজ, রসুন, আলু, খেসারি ডাল, লাউ, সরিষা, ইরি-বোরো, ধনে পাতা, লাল শাক, মুলাসহ শীতকালিন বিভিন্ন সবজি চাষ করে পরিবারে চাহিদা মিটিয়ে বাজারে বিক্রি করে বাড়তি আয় করছেন তারা।

সরেজমিনে উপজেলার চর উত্তর তিলাই, দক্ষিন ছাট গোপালপুরের বইজার চর, চর বারুইটারী ও চর বলদিয়ার দুধকুমার নদীর তীরবর্তী এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, যতদূর চোখ যায় কেবলই সবুজের সমারোহ। শত শত হেক্টর জমিতে এবার বিভিন্ন ধরনের ফসল ফলানো হয়েছে। নদীর দু ধারে বোরো ধান আবাদ করা হয়েছে। শীষ থেকে বেড় হওয়ার পর থেকেই এই ধানের গায়ে লম্বা কালো হুল থাকে। তাই স্থানীয়রা এ জাতের ধানকে কালা বোরো বলে। 

চর এলাকার বাসিন্দা আনোয়ার, রফিকুল ও আমজাদ জানান, তারা দুধকুমার নদীর জেগে ওঠা চরে সরিষা, ভুট্টা ও গম চাষ করেছেন। তারা আশা করছেন খুব ভালো ফলন হবে। কথা হয় অর্নাসে পড়ুয়া ছাত্র মমিনুরের সাথে। তার বাড়ি আন্ধারীঝাড় ইউনিয়নের চর বাড়ুইটারি গ্রামে। মমিনুর জানান, জেগে ওঠা চরে বিভিন্ন রকমের শাক ও সবজি আবাদ করেছি। তা বিক্রি করে সংসার ও তার লেখা পড়ার খরচের টাকা জোগাড় হয়।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান বলেন, দুধকুমার নদীর চরের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের বিভিন্ন ফসল ও শাক সবজির বীজ বিনামূল্য বিতরণ করা হয়েছে। চর এলাকায় আমাদের গমের প্রদর্শনী রয়েছে। চরের কৃষকরা এখন চাষবাদে বেশ উৎসাহী হচ্ছেন।

পিডিএসও/এসএম শামীম

নদীর চর,সবুজের সমারোহ
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close