কলাপাড়া(পটুয়াখালী) প্রতিনিধি

  ১২ জানুয়ারি, ২০২১

বেড়াতে নিয়ে হোটেলে আটকে তরুণীকে গণধর্ষণ

পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সিলভার ক্রাউন নামের একটি আবাসিক হোটেলে আটকে রেখে প্রেমিকাকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় সোমবার রাতে ধর্ষিতা নিজে বাদী হয়ে মহিপুর থানায় ৩ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। রাতেই পুলিশ মামলার প্রধান আসামি প্রেমিক রনি প্যাদা (২৪), সহযোগী মাইনুল (২০) ও হোটেল ম্যানেজার শহিদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে। পরে মঙ্গলবার দুপুরে তাদের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। 

আরও পড়ুনযা মিললো সিসিটিভি ফুটেজে

মামলার সূত্রে জানা যায়, ১০ থেকে ১৫ দিন আগে দশমিনা উপজেলার রনি প্যাদার সঙ্গে তালতলী উপজেলার শারীকখালি গ্রামের ওই তরুণীর মুঠোফোনের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সেই সূত্র ধরে রনি প্যাদা শনিবার ওই তরুণীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কুয়াকাটায় বেড়াতে নিয়ে আসে। এরপর স্বামী স্ত্রীর পরিচয়ে আবাসিক হোটেল সিলভার ক্রাউনের ২০৬ নম্বর কক্ষে ওঠেন। পরে ওই হোটেলে তরুণীকে আটকে রেখে প্রথমে রনি প্যাদা ধর্ষণ করে। পর্যায়ক্রমে তার সাথে দশমিনা থেকে আসা মাইনুল ইসলামও তাকে ধর্ষণ করে। এতে সহযোগিতা করে ওই হোটেলের ম্যানেজার শহিদুল ইসলাম। পরে সোমবার ওই তরুণী কোনওরকম ছাড়া পেয়ে তার পরিবারের সহায়তায় মহিপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মহিপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামান জানান, ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য পটুয়াখালী মেডিকেলে প্রেরণ করা হয়েছে। আসামিদের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।   

কুয়াকাটা,গণধর্ষণ,তরুণী
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়