ছাত্রসালেকিনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাসউদ, সম্পাদক জামিল

প্রকাশ : ২২ নভেম্বর ২০২০, ১৫:১৩ | আপডেট : ২২ নভেম্বর ২০২০, ১৫:২২

নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) প্রতিনিধি

‘সর্বত্র আল্লাহওয়ালা পরিবেশ কায়েমের আওয়াজ তুলুন’ এ প্রতিপাদ্যকে বুকে লালন করে বাংলাদেশ আনজুমানে ছাত্র সালেকিনের কেন্দ্রীয় সম্মেলন-২০২০ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার রাতে কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার মৌকারা দরবার শরীফ প্রাঙ্গণে মনোরম পরিবেশে কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সম্মেলনে ঢাকা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধাবী শিক্ষার্থী শাহ মুহাম্মাদ মাসউদ কেন্দ্রীয় সভাপতি ও ঢাকা আলিয়া মাদ্রাসার মেধাবী শিক্ষার্থী কাজী মুহাম্মদ ইসহাক জামিলকে সাধারণ সম্পাদক করে ২০২১-২০২২ সেশনের জন্য বাংলাদেশ আনজুমানে ছাত্রসালেকিনের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদদের ৩১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়।

কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদদের অন্যান্য সদস্যরা হলেন- মৌকারা দারুসুন্নাত নেছারীয়া কামিল মাদরাসা শিক্ষার্থী মুহাম্মদ একরামুল হক, মুহাম্মদ সোলাইমান, মুহাম্মদ বাকি বিল্লাহ পাটোয়ারি, মুহাম্মদ মুহিব্বুল ইসলাম মামুন ও মুহাম্মদ আবদুল্লাহ সহ-সভাপতি, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের শিক্ষার্থী মুহাম্মদ ওমর ফারুক, মুহাম্মদ মুনিরুল ইসলাম, কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মুহাম্মদ ফয়েজ আহমদ ও দারুন্নাজাত সিদ্দিকীয়া কামিল মাদরাসার শিক্ষার্থী মুহাম্মদ আবু ইউসুফ জয়েন্ট সেক্রেটারি, দারুন্নাজাত সিদ্দিকীয়া কামিল মাদরাসার শিক্ষার্থী মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন সাংগঠনিক সম্পাদক, কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মুহাম্মদ মুফাসসির হুসাইন প্রচার সম্পাদক, মৌকারা দারুসসুন্নাত নেছারীয়া কামিল মাদরাসা শিক্ষার্থী হাফেজ মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন অর্থ সম্পাদক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আবু সাঈদ শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক, কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নেছার আহমদ হাজারী সাহিত্য সম্পাদক, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শাহিনুর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাখাওয়াত হোসেন সেবা ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক, মৌকারা দারুসসুন্নাত নেছারীয়া কামিল মাদরাসার শিক্ষার্থী ওমর ফরুক নেছারীন সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক, হাফেজ মুহাম্মদ জোবায়ের হোসেন সহ-প্রচার সম্পাদক, জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদরাসার শিক্ষার্থী মুহাম্মদ মাহফুজুর রহমান সহশিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক ও ঢাকা কলেজে শিক্ষার্থী মুহাম্মদ রাকিবুল ইসলাম সহ-তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রমুখ। 

সম্মেলনে ছাত্রসালেকিনের সেক্রেটারি মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ পাটোয়ারীর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- আমিরুস সালেকিন মৌকারা দরবার শরিফের আলা হযরত পীর সাহেব কিবলা আলহাজ মাওলানা শাহ মুহাম্মদ নেছারউদ্দীন ওয়ালিউল্লাহী (মা.জি.আ.)। 

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- দৈনিক ইনকিলাবের সিনিয়র সহকারী সম্পাদক মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী, জমিয়াতুস সালেকিনের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আলহাজ মাওলানা আবদুল হালিম (ছোট হুজুর), প্রেসিডিয়াম সদস্য আলহাজ মাওলানা মির্জা সায়মুর রহমান বেগ, আলহাজ জাহিদুল মাওলা চৌধুরী হেলাল, আলহাজ জয়নাল আবেদীন খলিফা, শায়খে ফান্দাউক আলহাজ মাওলানা সৈয়দ মুঈনউদ্দীন আহমদ আলহুসাইনী, জয়েন্টসেক্রেটারি জেনারেল অধ্যক্ষ আলহাজ মাওলানা আনোয়ার হোসেন, তালিমে তরিকত সম্পাদক অধ্যক্ষ আলহাজ মাওলানা রফিকুল ইসলাম, উপাধ্যক্ষ আলহাজ মাওলানা ইউসুফ মজুমদার, যুবসালেকিন সভাপতি আলহাজ আবুল কালাম আজাদ, সেক্রেটারি জেনারেল আলহাজ হাফেজ আবুল হাশেম, জয়েন্ট সেক্রেটারি মাওলানা আ. জ. ম. সাইফুল্লাহ, বাংলাদেশ আনজুমানে ইসলামী ছাত্রমহলের কেন্দ্রীয় সভাপতি সৈয়দ আবু বকর, নুরমুহাম্মদপুর দরবার শরিফের সাহেবজাদা আবু আবদিল্লাহ মুহাম্মদ খালেদ, চন্দ্রগঞ্জ কারামতীয়া আলিয়ার সাবেক অধ্যক্ষ আলহাজ মাওলানা আব্দুল হাই।

সম্মেলনে সারা দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আনজুমানে ছাত্রসালেকিনের হাজার হাজার নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে রাতব্যাপী ইসলামী সঙ্গীতানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।      

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বক্তব্যে পীর সাহেব কিবলা আলহাজ মাওলানা শাহ মুহাম্মদ নেছারউদ্দীন ওয়ালিউল্লাহী (মা.জি.আ.) বলেন, সমগ্র দেশ ভায়বহ আদর্শিক বিপর্যয়ের মুখে দাঁড়িয়ে। বহুমুখি ফেতনা ধর্ম-অধর্মের লেবাস পরে সমাজের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ছে। ছাত্র সমাজ হয়ে পড়ছে দিগভ্রান্ত, আদর্শহীন বিজাতীয় সভ্যতার প্রভাবপুষ্ট। সাম্রাজ্যবাদী ষড়যন্ত্র, দীন বিরোধী তৎপরতা আর আমাদের উদাসীনতায় বাংলাদেশের সমাজ ও সংস্কৃতি থেকে ইসলাম দিন দিন দূরে সরে পড়ছে। আমাদের সামাজিক ঐক্য নষ্ট হচ্ছে। নাস্তিক্যবাদী শক্তির উত্থান লক্ষ করছি উদ্বেগের সাথে। জাতির এ ক্রান্তিকালে ছাত্রসালেকিন আদর্শিক বিপ্লবের দুর্জয় কাফেলা। 

তিনি আরো বলেন, ৯৫ ভাগ মুসলমানের বাংলাদেশ ইসলাম-বিরোধী কর্মকান্ডের জন্যে নয়। বহু মনীষী, পুরোধা ব্যক্তিত্ব, পীর, উলামার রক্ত-ঘামে সিক্ত এ জমিন নাস্তিক্যবাদের স্বর্গরাজ্য হতে দেয়া যাবে না। ছাত্রসালেকিনের নেতাকর্মীদের যোগ্যতা সম্পন্ন হয়ে উঠতে হবে। আমরা ছাত্রদের শ্রমিক নয়, জ্ঞানী পন্ডিত, জাতি-রাষ্ট্রের আমানতদার খাদেম হিসেবে তৈরি হতে দেখতে চাই। 

পীর সাহেব বলেন, এ সমাজ আমাদের। আমরা আমাদের সমাজকে ইসলামের সৌন্দর্যেই দেখতে চাই। সুতরাং পারস্পরিক প্রীতি, সম্মান, ঐক্য, ভ্রতৃত্বের বন্ধন শক্তিশালী করে, সর্বত্র আল্লাহওয়ালা পরিবেশ কায়েমের আওয়াজ তুলুন।

পিডিএসও/এসএম শামীম