আনোয়ারায় বেড়িবাঁধের উন্নয়ন কাজে বাঁধা

রাতের অন্ধকারে মাটি কাটার এস্কেভেটরে আগুন

প্রকাশ : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:১৪

আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার জুঁইদন্ডী ইউনিয়নের বানুর হাট এলাকার উপকূলীয় বেড়িবাঁধ উন্নয়ন কাজের জন্য নিয়ে আসা এস্কেভেটর গাড়িতে রাতের অন্ধকারে আগুনে পুড়ে দেওয়ার অভিযোগ করেছে স্থানীয়রা। মঙ্গলবার রাত সাড়ে তিনটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় বুধবার এস.এ.এস.আই এন্ড ইসরাত এন্টারপ্রাইজ জেভি সাইট ইঞ্জিনিয়ার মো. আমিরুল ইসলাম পানি উন্নয়ন বোর্ডে একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বেড়িবাঁধ উন্নয়ন কাজের জন্য দায়িত্বরত এসও ফারাইুজল ইসলামের নির্দেশে গত ২০ সেপ্টেম্বর কাজ করার জন্য এ এস্কেভেটর নিয়ে আসা হয়। ২২ সেপ্টেম্বর কাজ শুরু করার কথা থাকলেও ২১ সেপ্টেম্বর রাতে স্থানীয় দুস্কৃতিকারীরা সাইটের এস্কেভেটরটি পেট্রাল দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে তিনটায় সরেজমিনে গিয়ে ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়,  জুঁইদন্ডী ইউনিয়নের বানুর হাট এলাকার উপকূলীয় বেড়িবাঁধ উন্নয়ন কাজে মাটি কাটার জন্য নিয়ে আসা হয় একটি এস্কেভেটর গাড়ি। মঙ্গলবার সকাল থেকে মাটি কাটার কথাও ছিলো। দীর্ঘদিন ধরে অবহেলায় পড়ে থাকা বেড়িবাঁধ সংস্কারের কাজটি এস.এ.এস.আই এন্ড ইসরাত এন্টারপ্রাইজ জেভি ঠিকাদারী নেন।

স্থানীয়দের বিভিন্ন ধরণের বাঁধার কারণে সে কাজটিও বন্ধ হয়ে যায়। এরপর অবশেষে স্থানীয় ঠিকাদার মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক নামে এক ঠিকাদারী নেন। তার কাছ থেকেও বিভিন্ন সময়ে চাঁদা করায় সেও কাজ করতে পারছে না বলেও জানান স্থানীয়রা। স্থানীরা আরো জানান, অনেকদিন পর কাজ শুরু হচ্ছিলো কিন্তু গতকাল রাতের অন্ধকারে স্থানীয় দুস্কৃতিকারীরা আগুণ ধরিয়ে দেয় গাড়িতে।

স্থানীয় বাসিন্দা মোহাম্মদ মামুন জানান, এস্কেভেটর গাড়িতে আগুন দেওয়ার খবর পেয়ে আমি দ্রুত ছুঁটে আসি এবং জানতে পারি শাহ আলমের ছেলে মোহাম্মদ কাদের, বর্তমান ইউপি সদস্য বদিউর রহমানের ছেলে মোহাম্মদ হারুন, আনোয়ার ইসলামের ছেলে দিদারুল আলম, মোহাম্মদ মিন্টু, মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে নুরুল আলম আগুন লাগিয়েছে। আগুন লাগিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় এলাকার লোকজন তাদেরকে দেখছে।

আরেক স্থানীয় বাসিন্দা আতিকুর রহমান বাবু বলেন, যারা আগুন লাগিয়ে দিয়েছে তারা এলাকার যুবকদের মাদকের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। তাদের অত্যাচারে এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ। কেউ কোনো কাজ করলেও তাদেরকে দিতে হয় চাঁদা। অনেকদিন পর অবহেলিত বেঁড়িবাঁধের কাজ হচ্ছিল কিন্তু ঠিকাদার মোজাম্মেলের কাছ থেকেও চাঁদা চেয়েছে। প্রকাশে এসে হুমকিও দিয়েছে তারা। চাঁদা না দেওয়ায় গাড়িতে আগুন দিয়েছে। আগুন লাগিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় পাশের বাড়ির মোহাম্মদ ইসমাইল ও তার স্ত্রী রিনা আকতার নিজে দেখেছে। আমরা এসে তাদের ধাওয়াও করেছি।

সাব ঠিকাদার মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক বলেন, কাজটি নেওয়ার পর থেকে তারা আমার কাছ থেকে চাঁদা দাবী করছে। তাদের চাঁদা না দেওয়ায় রাতে এসে এস্কেভেটরে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। আমি এটার সুষ্ঠু বিচার দাবী করছি। আমি এখানে সরকারের উন্নয়নের কাজ করছি স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী বা সন্ত্রাসীদের কেন চাঁদা দিতে হবে।

অভিযুক্ত মোহাম্মদ হারুন স্বীকার করে বলেন, স্থানীয়রা আমার বিরুদ্ধে যেসব কথা বলছেন সবই মিথ্যা ও ষড়যন্ত্র। অনেক বছর আগে আমি ও মামুন ঠিকাদারী কাজ ছেড়ে দিয়েছি। গতকাল যে ঘটনাটি ঘটছে এসব আমি কিছুই জানি না। ঠিকাদার মোজাম্মেল ও তার সিন্ডিকেটের সাথে আমার পারিবারিক শত্রুতা ছিলো। এর জেরে তারা আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে।

এঘটনায় এস.এ.এস.আই এন্ড ইসরাত এন্টারপ্রাইজ জেভি সাইট ইঞ্জিনিয়ার মো. আমিরুল ইসলাম বলেন, আনোয়ারা বেড়িবাঁধের সংস্কার কাজ করার জন্য আমাদের কোম্পানীর এস্কেভেটরটি নিয়ে আসে। কে বা কারা রাতের অন্ধকারে আগুণ লাগিয়ে দিয়েছে বলে খবর পেয়েছি। এঘটনায় আমরা পানি উন্নয়ন বোর্ড, স্থানীয় থানা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছি।

এবিষয়ে আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ জোবায়ের আহমেদ বলেন, এঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। আগুন দেওয়ার ঘটনায় যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

জানতে চাইলে আনোয়ারা থানার অফিসার ইনচার্জ দুলাল মাহমুদ বলেন, এ ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।