এ এম জিহান মুনতাসিন

  ০২ জুন, ২০২৪

বাংলাদেশের দুঃখ ঘোচানোর মিশন

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে তেমন কোনো সফলতা নেই বাংলাদেশের। ২০০৭ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম আসরে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে শুরু করেছিল টাইগাররা। কিন্তু পরে আরো সাতটি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করলেও প্রতিষ্ঠিত কোনো দেশের বিপক্ষে জয়ের দেখাই পায়নি লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। মারকাটারি এই টুর্নামেন্টের নবম আসরে এবার অতীতের সেই আক্ষেপ ঘোচাতে মরিয়া নাজমুল হোসেন শান্ত কোং।

আইসিসির সবশেষ প্রকাশিত টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ে ৯ নম্বরে বাংলাদেশ। কিন্তু এই ফরম্যাটে দুরবস্থা এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেনি টাইগাররা। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে উগান্ডার কাছে হেরে বাদ পড়া জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে ফুটে উঠেছে ব্যাটারদের ঘাটতি। এরপর আইসিসির সহযোগী দেশ যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে সিরিজ হারে ব্যাকফুটে শান্তরা। অথচ গত বছর ইংল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশের (৩-০) পর আয়ারল্যান্ড ও আফগানিস্তান সিরিজ (২-১) জিতে সংক্ষিপ্ত এই ফরম্যাটে জাগিয়েছিল দারুণ সম্ভাবনার।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সব আসরে খেলেছে বাংলাদেশ। কিন্তু ৩৮ ম্যাচ খেলেও জিতেছে মাত্র ৯টিতে। বিপরীতে টাইগারদের হার ২৮ ম্যাচে। বাকি একটি ম্যাচ বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়। ২০২২ সালে সবশেষ আসরে দুটি জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। তবে উপমহাদেশের দুই জায়ান্ট ভারত-পাকিস্তানকে হারানোর কাছাকাছি এসেও সেটি করতে পারেনি টাইগাররা। কাগজে-কলমে এটি বাংলাদেশের সেরা বিশ্বকাপ পারফরম্যান্স হলেও বাস্তবতা হচ্ছে যথেষ্ট ভালো পারফরম্যান্স ছিল না। এবার দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠাই প্রধান লক্ষ্য টাইগারদের। অভিজ্ঞতা আর তারুণ্যের মিশেলে ভারসাম্যপূর্ণ দল গড়েছে বাংলাদেশ। নাজমুল হোসেন শান্তর নেতৃত্বে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলবেন ছয় ক্রিকেটার- তানজিদ হাসান তামিম, তাওহীদ হৃদয়, জাকের আলী অনিক, তানজিম হাসান সাকিব, রিশাদ হোসেন ও তানভীর ইসলাম। টাইগার বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান খেলবেন রেকর্ড নবম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের অষ্টম। এ ছাড়া তাসকিন আহমেদ, লিটন দাস, মুস্তাফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম, সৌম্য সরকার, শেখ মেহেদী হাসানরা জাতীয় দলকে লম্বা সময় ধরে সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছেন।

এবারের বিশ্বকাপে বাংলাদেশ আছে ‘ডি’ গ্রুপে। প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা, দক্ষিণ আফ্রিকা, নেপাল ও নেদারল্যান্ডস। ৭ জুন ডালাসে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবে টাইগাররা। এরপর ১০ জুন নিউইয়র্কে তারা মুখোমুখি হবে দক্ষিণ আফ্রিকার। চন্ডিকা হাথুরুসিংহের শিষ্যরা ১৩ জুন ওয়েস্ট ইন্ডিজের সেন্ট ভিনসেন্ট অ্যান্ড গ্রেনাডাইন্সে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে খেলবে। একই ভেন্যুতে ১৬ জুন গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে নেপালকে মোকাবিলা করবে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close