বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি

  ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১

চালক ও মালিকের ধর্মঘটে বেনাপোলে দুর্ভোগ

২০ দিন ধরে ভারতে প্রবেশের অপেক্ষায় রপ্তানি পণ্যবোঝাই হাজার হাজার ট্রাক বেনাপোল বন্দরসহ আশপাশের প্রধান সড়ক এলাকায় অবস্থান করছে। সংকীর্ণ সড়কে পাশাপাশি ট্রাক রেখে দেওয়ার ফলে এ বন্দর এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। চালক ও মালিকের ধর্মঘটের কারণে বন্দরে এ দুর্ভোগ দেখা দেয়। তীব্র যানজটে বেনাপোল স্থলবন্দর কার্যত অবরুদ্ধ হয়ে পড়ছে। বেনাপোল স্থলবন্দরের চেকপোস্ট রপ্তানি গেট, টার্মিনাল, বেনাপোল পৌর টার্মিনাল, বন্দর, কাস্টমস এলাকা, বাজারসহ যশোর-বেনাপোলের প্রধান সড়ক হয়ে শার্শা উপজেলা সদর পর্যন্ত প্রায় পাঁচ কিলোমিটার সড়ক যানজটে এলাকাবাসীসহ পাসপোর্টধারী যাত্রীদের ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে।

দেশের সর্ববৃহৎ বেনাপোল স্থলবন্দরের বিপরীতে ভারতের পেট্রোপোল বন্দরের জায়গা সংকটের কারন দেখিয়ে বেনাপোল বন্দর দিয়ে রপ্তানি বাণিজ্যে বড় ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে ভারত। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, এই সংকট কৃত্রিমভাবে তৈরি করা হচ্ছে। ভারত প্রতিদিন এ বন্দর দিয়ে বাংলাদেশে ৩৫০ থেকে ৪০ ট্রাক পণ্য বাংলাদেশে রপ্তানি করলেও বাংলাদেশি পণ্য নেওয়ার ক্ষেত্রে তারা বরাবরই প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। ভারত আগে ১৫০ থেকে ২০০ ট্রাক রপ্তানি পণ্য গ্রহণ করলেও বর্তমানে ৯০ থেকে ১০০ ট্রাক রপ্তানি পণ্য গ্রহণ করছে। দীর্ঘদিন ধরে এ অবস্থা বিরাজ করলেও প্রশাসনের কোনো কর্তাব্যক্তিকে তা নিরসনে এগিয়ে আসতে দেখা যায়নি। দফায় দফায় আলোচনা করেও কোনো সুরাহা করা যায়নি যানজটের। এতে রপ্তানি বাণিজ্যেও বিরূপ প্রভাব পড়ছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। প্রতিদিন এক একটি ট্রাককে পণ্য পরিবহনের ভাড়ার পাশাপাশি ১ হাজার ৬০০ টাকা করে ডেমারেজ গুনতে হচ্ছে। সময়মতো এসব পণ্যবাহী ট্রাক গন্তব্যে যেতে না পারায় লাখ লাখ টাকার ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে এ দেশের রপ্তানিকারকরা। এ নিয়ে বন্দর ও আশপাশের এলাকায় বসবাসকারী হাজার হাজার মানুষ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

বন্দর সংশ্লিষ্টরা জানান, বেনাপোল বন্দর দিয়ে রপ্তানি বেড়ে যাওয়ায় প্রতিদিন ২০০ থেকে ২৫০ ট্রাক রপ্তানি পণ্য নিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বাংলাদেশি ট্রাক আসছে বেনাপোল বন্দরে। ভারত নিচ্ছে ১০০ ট্রাক। ১০০ থেকে ১৫০ ট্রাক প্রতিদিন বাড়তি থেকে যাচ্ছে। রপ্তানি পণ্যের এসব ট্রাক রাখার মতো টার্মিনাল বা স্থান বেনাপোল বন্দরেও নেই। এ কারণে বন্দরের আশপাশের শাখা রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছে ট্রাকগুলো। এতে বন্দর এলাকায় ভয়াবহ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। সড়কে ট্রাকের জটলার কারণে বেনাপোল চেকপোস্ট রপ্তানি গেট থেকে শার্শা উপজেলা সদর পর্যন্ত প্রায় পাঁচ কিলোমিটার সড়কে স্থানীয় সাধারণ মানুষ ও পাসপোর্টধারী যাত্রীদের সীমাহীন ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। আটকে থাকা রপ্তানি পণ্যবাহী ট্রাকের কারণে বেনাপোল এলাকার বিভিন্ন সড়কে রিকশা-ভ্যানও যাতায়াত করতে পারছে না। অনেকে হেঁটে চেকপোস্টে যেতে বাধ্য হচ্ছেন। বিশেষ করে রোগী, নারী ও শিশুদের কষ্টের শেষ নেই। মুমূর্ষু কোনো রোগী নিয়ে একটি অ্যাম্বুলেন্স যাওয়ারও উপায় নেই। এ অবস্থায় বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠন সভা করে এবং কাস্টমস কর্তৃপক্ষ বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দরে রপ্তানি বাণিজ্য রাত ১১টা পর্যন্ত বৃদ্ধি করেছে, তবু সমস্যার কোনো সুরাহা হয়নি। দিন দিন তা আরো প্রকট আকার ধারণ করেছে।

যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের ওপর যত্রতত্র পণ্যবোঝাই প্রায় পাঁচ হাজার ট্রাক ভারতে প্রবেশের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে রয়েছে। তেমনি জায়গা না থাকায় ভারতের পেট্রাপোল স্থলবন্দর থেকে আমদানি পণ্যবোঝাই ট্রাকও বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারছে না। গতকাল এ ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close