reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ২৮ নভেম্বর, ২০২১

‘মুজিব ১০০ শিল্প প্রদর্শনী’ উপলক্ষে ইউজিসির ওয়েবিনার

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) আয়োজনে ‘মুজিব ১০০ শিল্প প্রদর্শনী’-এর পরিপ্রেক্ষিতে ভার্চুয়াল প্ল্যাটফরম জুমের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হলো ‘বৈশ্বিক কর্মসংস্থান বাজারের বর্তমান ধারা, বাংলাদেশের একাডেমিয়া এবং শিল্প যেসব ভূমিকা পালন করতে পারে’ শীর্ষক একটি ওয়েবিনার সেশন। ওয়েবিনার সেশনে প্রধান অতিথি ছিলেন ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন সদস্য ‘IC4IR 2021’ অর্গানাইজিং চেয়ার অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন।

আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাজ্যের ওয়ারউইক বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ড. অনুপ বাড়ই, ইটুডি এডুকেশন সার্ভিসের প্রধান তথ্য ও শিক্ষা কর্মকর্তা বারী কাহার, ক্রিকেট পয়েন্ট সাইবার সিকিউরিটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী জামান, ফাইজার ইউকের জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানী শামস তানিয়া আফরোজা ইসলাম, যুক্তরাষ্ট্রের আর্লিংটনের ভিজিটিং সায়েন্টিস্ট অধ্যাপক মো. মামুন হাবীব, নাসার সহযোগী বিজ্ঞানী নিশান কুমার বিশ্বাস, জার্মানির ফ্রাউনহফার এফআইটির গবেষণা সহযোগী মো. সাদেক ফেরদৌস, টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যারোস্পেস সেন্টারের সহযোগী সহ-সভাপতি আহসান চৌধুরী। সঞ্চালক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক ড. মো. সারোয়ার মোর্শেদ, চেয়ার, মুজিব ১০০ শিল্প প্রদর্শনী ২০২১ এবং সহ-সঞ্চালক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক ড. এম শামীম কায়সার, টেকনিক্যাল সেক্রেটারি, IC4IR 2021।

অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ জানান, জাতির পিতার সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনায় মুজিবশতবর্ষে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের যুগোপযোগী পদক্ষেপে আয়োজিত হতে যাচ্ছে ‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লব সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক সম্মেলন (IC4IR) ২০২১’, এর সঙ্গে একত্রে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘মুজিব ১০০ শিল্প প্রদর্শনী’ যা সত্যিকার অর্থে বাংলাদেশের শিল্প ও বাণিজ্য খাতেকে উন্নতি ও সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রার পথে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যাবে। ফলে সম্মিলিত ও সুসংহত কর্মকৌশল গ্রহণ করে কর্মসংস্থানের বাজারকে শিক্ষা ও শিল্প সহযোগিতাবান্ধব পরিবেশ গড়ে তোলা সম্ভব হবে এবং সেই সঙ্গে বাংলাদেশের একাডেমিয়া এবং শিল্পের উন্নয়ন ঘটবে। আমাদের শিক্ষা খাতে নতুন কারিকুলামসহ কর্মক্ষেত্রে কার্যকর শিক্ষার ব্যবস্থা গড়ে তুলতে কাজ করে যেতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন ও বর্তমান সরকার সেই লক্ষ্যে বিভিন্ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নে দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছে।

আলোচকরা জানান, মাহামারি কোভিড-১৯-এর কারণে বিশ্ব অর্থনীতি একটা সংকটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে এবং আমরা সংকট কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছি। কর্মসংস্থানের জন্য একটি সার্বিক পরিকল্পনা এবং কর্মকৌশল প্রয়োজন। চতুর্থ শিল্প বিপ্লব সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক সম্মেলন (IC4IR) ২০২১ এর পাশাপাশি মুজিব ১০০ শিল্প প্রদর্শনীর মতো বড় বড় সম্মেলনগুলো বাংলাদেশের জন্য বিশাল সম্ভাবনা সৃষ্টি করবে। কর্মসংস্থানের পাশাপাশি বৈশ্বিক কর্মসংস্থানের বাজারকে ধরতে হলে আমাদের সক্ষমতা ও সফলতার দিকগুলো সঠিকভাবে তুলে ধরতে হবে।

ওয়েবিনার আলোচনায় আরো যে বিষয়গুলো উঠে আসে তা হলো, বাংলাদেশের শিক্ষিত দক্ষ ও মেধাবী ছাত্রছাত্রীরা বিভিন্ন দেশে গবেষণা ও অধ্যায়নরত রয়েছে। তারা জ্ঞানার্জনের সঙ্গে সঙ্গে বিশ্বের কর্মসংস্থানের বাজারের বর্তমান চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে অবগত হচ্ছে। সারা বিশ্ব এখন গ্লোবাল ভিলেজ। উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে আমাদের যে জনশক্তি রয়েছে, তাদের দক্ষতা বৃদ্ধি করা সম্ভব হলে বিশ্বের কর্মসংস্থান বাজারে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ আরো শক্তিশালী হবে। বর্তমানে শিক্ষা ও কর্মক্ষেত্রের মাঝে যে দূরত্ব বিদ্যমান রয়েছে, সেইসব সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্য বর্তমান সরকার যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। যা বাস্তবিক অর্থে বিশাল বড় একটি চ্যালেঞ্জ। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের আয়োজনে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক সম্মেলন (IC4IR) ২০২১ ও মুজিব ১০০ শিল্প প্রদর্শনীর মাধ্যমে বৈশ্বিক কর্মসংস্থানের বাজারের সঙ্গে সংযুক্ত হবার গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হিসেবেও কাজ করছে। বিশ্ব বাজারে তৈরি হওয়া নতুন কর্মক্ষেত্রগুলোতে বাংলাদেশের অংশীদ্বারত্ব বাড়বে বলে আলোচকরা আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close