প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ৩১ জুলাই, ২০২১

ইলিশ আহরণে প্রতীক্ষা ৪৩ হাজার জেলের

নিষেধাজ্ঞা শেষে ইলিশ মৌসুমে বৈরী আবহাওয়ার কারণে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েও বরগুনার জেলেরা সাগরে যেতে পারছেন না। আবহাওয়া ভালো হলে তাদের জালে রুপালি ইলিশ পাওয়ার আশা করছেন জেলে, মৎস্য বিভাগসহ সংশ্লিষ্টরা।

নদীবেষ্টিত এই জেলার নদীতীরবর্তী গ্রামগুলোর অধিকাংশ মানুষের জীবিকার প্রধান উৎস মাছ শিকার। এ জেলার তিনটি প্রধান নদ-নদী বিশখালী, বলেশ্বর ও পায়রাকে ঘিরে হাজার হাজার প্রান্তিক জেলের বসবাস। এ ছাড়া বঙ্গোপসাগরের মোহনায়ও ছোট নৌকা নিয়ে ইলিশ ধরেন কয়েক হাজার জেলে। এখানে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা সফলভাবে শেষ হয়েছে।

মৎস্য বিভাগ ও জেলেরা জানান, এখন জাল ফেলার মৌসুম। কারণ আগামী ১৪ অক্টোবর থেকে আবার প্রজনন মৌসুমের ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু হবে। এরই মধ্যে ইলিশ পেতে হবে জেলেদের জালে। জেলা মৎস্য বিভাগের তথ্য মতে, বরগুনায় প্রায় ৪৩ হাজার জেলে রয়েছেন, যাদের জীবিকার একমাত্র উৎস্য সাগর-নদীতে মাছ ধরা। বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী জানিয়েছেন, ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে সাগরে যাওয়ার জন্য ট্রলার ঘাটেই বসে রয়েছে। বৈরী আবহাওয়ার অবসরে বরফসহ রসদসামগ্রী নষ্ট হয়ে যাচ্ছে; এ অবস্থায় জেলেরা অসহায় সময় পার করছেন।

বরগুনা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ কুমার দেব জানান, ‘মৌসুমে সাগর থেকে ইলিশ নদ-নদীতে বিচরণ করতে আসে। এ সময় প্রায় সবখানেই এসব ইলিশ ধরা পড়ে। আমরা আশা করি, খুব তাড়াতাড়িই সাগর, নদীতে ইলিশ ধরা পড়া শুরু হবে।’ বাসস

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close