নিজস্ব প্রতিবেদক

  ২৫ নভেম্বর, ২০২০

ভারতীয় উপকূলে আঘাত হানবে ঘূর্ণিঝড় নিভার

বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি ঘনীভূত হয়ে পরিণত হয়েছে ঘূর্ণিঝড়ে। আরো শক্তি সঞ্চয় করে তা এগিয়ে যাচ্ছে ভারতের তামিলনাড়– উপকূলের দিকে। বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার সাইক্লোন-সংক্রান্ত আঞ্চলিক সংস্থা এসকাপের তালিকা অনুযায়ী, এই ঘূর্ণিঝড়ের নাম দেওয়া হয়েছে নিভার। ইরান এ নামটি এসকাপে প্রস্তাব করেছিল। নিভার আরো ঘনীভূত হয়ে উত্তর-পশ্চিম দিকে এগিয়ে যেতে পারে। তবে এর তেমন কোনো প্রভাব বাংলাদেশে পড়বে বলে আবহাওয়াবিদরা মনে করছেন না।

আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ জানান, গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৬টায় এ ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৬৬৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৬১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৫৫৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৫৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল।

------
সমুদ্রবন্দরগুলোকে কোনো সংকেত দেখাতে বলা হয়নি। তবে পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। রবিবার বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ সৃষ্টি হওয়ার পর তা ঘনীভূত হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপ, এরপর নিম্নচাপ, তারপর গভীর নিম্নচাপের রূপ পায়। মঙ্গলবার তা আরো শক্তি সঞ্চয় করে ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নেয়। ভারতীয় আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, আরো ঘনীভূত হয়ে নিভার প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের রূপ পেতে পারে। আজ বুধবার সেটি পুদুচেরির (পুরোনো নাম পন্ডিচেরি) কাছ দিয়ে তামিলনাড় উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

বাংলাদেশের আবহাওয়াবিদরা বলেছেন, এ ঘূর্ণিঝড়ের যা প্রভাব, তা ভারত ও শ্রীলঙ্কার ওপরই পড়বে। বাংলাদেশে ঝড়-বৃষ্টির আশঙ্কা তেমন নেই। এদিকে টানা কয়েক দিন রাতের তাপমাত্রা কমার প্রবণতা কেটে গিয়ে ধীরে ধীরে বাড়তে শুরু করেছে।

মঙ্গলবারের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আকাশ অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা থাকতে পারে; সারা দেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের কোথাও কোথাও হালকা থেকে মাঝারি কুয়াশা থাকতে পারে। দেশের দক্ষিণাঞ্চলে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে। দিনের তাপমাত্রাও কিছুটা বাড়বে।

 

 

"

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close