চট্টগ্রামে বন্ধ হতে পারে করোনার পরীক্ষা!

উপাদানের অভাবে কাজে আসছে না ৯৫০ কিট

প্রকাশ | ১৭ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

মিনহাজুল ইসলাম, চট্টগ্রাম ব্যুরো

বৃহত্তর চট্টগ্রামে করোনার (কোভিড-১৯) একমাত্র নমুনা পরীক্ষাগার বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজে (বিআইটিআইডি) দেখা দিয়েছে কিট সংকট। এতে মঙ্গলবার নতুন করে ওই ল্যাবে ৯৫০ কিট পাঠানো হলেও এক্সটেনশন ফ্লুইড জরুরি উপাদানের অভাবে আপাত কাজে আসছে না কিটগুলো। গতকাল বৃহস্পতিবার ল্যাবে গবেষণার জন্য থাকা কিট দিয়ে কিছু নমুনা পরীক্ষা করা হলেও আজ থেকে চট্টগ্রামে করোনার পরীক্ষা করা যাবে না। ফলে কিটের জন্য রোগতত্ত্ব রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) দিকে থাকিয়ে থাকতে হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটিকে।

বিআইটিআইডি সূত্র জানায়, আইইডিসিআর থেকে গত ২৫ মার্চ ৮৫০টি কিট প্রদান করা হয়। একটি বিদেশি সংস্থা বিআইটিআইডিতে আরো ১০০ কিট প্রদান করেন। এছাড়া গবেষণার কাজে আরো প্রায় ১০০টি কিট ছিল বিআইটিআইডিতে। সব মিলিয়ে ১ হাজার ৫০০ কিটে দিয়ে এত দিন পরীক্ষা করে আসছিলেন তারা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, একটি করোনার (কোভিড-১৯) নমুনা পরীক্ষা সম্পন্ন করতে তিনটি ধাপে কাজ করতে হয়। পরীক্ষার জন্য পাঠানো কিটে আনুষঙ্গিক যেসব উপাদান সামগ্রী রয়েছে তা দেওয়া হয়নি। এখন যে কিট রয়েছে তা সর্বশেষ ধাপ পিসিআর মেশিনে কাজ করার জন্য। ফলে কিটগুলো দিয়ে আপাতত করোনার পরীক্ষা করা যাবে না।

বিআইটিআইডির মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক শাকিল আহমেদ প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, আমাদের কাছে পিসিআর মেশিনে ব্যবহারের জন্য কিছু কিট পাঠিয়েছেন আইইডিসিআর। কিন্তু পিসিআর মেশিনে নমুনা দেওয়ার আগে কিটে এক্সটেনশন ফ্লুইড নামের একটি জরুরি উপাদান না থাকায় কিটগুলো ব্যবহার করে কোভিড-১৯ পরীক্ষা সম্ভব নয়। তবু গত বুধবার ও আজ বৃহস্পতিবার গবেষণার কাজে থাকা কিছু কিট দিয়ে পরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছি।

কখন কিটগুলোর উপাদান পাবেন এমন এক প্রশ্নের জবাবে এই অধ্যাপক বলেন, কিটের উপাদানগুলো বৃহস্পতিবার রাতেও পাওয়ার সম্ভবনা নেই। আজ (শুক্রবার) হয়তো কিট উপাদানগুলো পেতে পারি। বৃহস্পতিবার সব নমুনার পরীক্ষা করা সম্ভব হয়নি। তবু চেষ্টা করা হয়েছিল মোটামুটি যাতে অর্ধেকের চেয়ে বেশি পরীক্ষা করা যায়। আইইডিসিআর থেকে কিটের উপাদান বিষয়ে যোগাযোগ করা হয়েছে কিনা এমন এক প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক শাকিল বলেন, কোনো ধরনের যোগাযোগ করা হয়নি।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, কিটের একটা অংশ উপাদান আসেনি বিআইটিআইডিতে। তার জন্য বলা হয়েছে। এই অংশ চলে আসবে। কিটের জন্য কোনো সমস্যা হবে না।

বিআইটিআইডিতে গত বুধবার পর্যন্ত ১ হাজার ১৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তার মধ্যে ৩৬ জনের করোনাভাইরাস আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। সব মিলিয়ে চট্টগ্রাম জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩২, নোয়াখালীতে ২ জন এবং লক্ষ্মীপুরে ২জন। চট্টগ্রামে শনাক্ত হওয়া করোনার রোগীদের মধ্যে চারজন মারা গেছেন।

 

"