বগুড়া প্রতিনিধি

  ২২ জুন, ২০২৪

সরকারি চাকরি ছেড়ে কোয়েল পাখির খামারে স্বনির্ভর শহিদ

সরকারি চাকরি ছেড়ে কোয়েল পাখির খামার করে স্বনির্ভর হয়েছেন বগুড়ার গাবতলীর যুবক শাহিদুল ইসলাম শহিদ। উপজেলার দুর্গাহাটা গ্রামের এই উদ্যোক্তা বছরে প্রায় ৪ কোটি টাকার কোয়েল পাখি, বাচ্চা আর ডিম বিক্রি করেন বলে জানা গেছে। পাশাপাশি ৪০ জন মানুষের কর্মসংস্থানও করেছেন তিনি।

জানা গেছে, কৃষক দিরাজ প্রাং এর দুই সন্তানের মধ্যে ছোট শহিদ ২০০৫ সালে এসএসসি পাশের পর উচ্চ মাধ্যমিকে অধ্যায়ন করতে থাকতেন শহরের ছাত্রাবাসে। অর্থাভাবে ছাত্রাবাসে থেকে পড়াশুনার খরচ চালাতো কষ্টকর হয়ে উঠলে খন্ডকালীন চাকরি করেন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে। এইচএসসি পাশের পর মাসখানেক গার্মেন্টে চাকরি করে আবার ফেরেন সেই খন্ডকালীন চাকরিতে। বসতবাড়ীর সাড়ে তিন শতাংশ জায়গা ছাড়া সহায় সম্ভল বলে কিছুই নেই তাদের। ২০১০ সালের শহরের সাতমাথায় কোয়েল পাখির ডিম খাওয়া দেখে খামার গড়ার চিন্তা করেন। মাত্র সাড়ে ৩ হাজার টাকা দিয়ে ১০০ কোয়েল পাখি দিয়ে শুরু করেন খামার। শুরুতে পরিবারের সদস্যরা এ নিয়ে তাকে তাচ্ছিল্য করতো। এরই মধ্যে ২০১৬ সালে তিনি ত্রান ও দূর্যোগ অধিদপ্তরের কার্য সহকারীর চাকরি পান। চাকরির চেয়ে খামারে বেশি লাভবান হবেন তাই তিন বছর চাকরি করে ফিরে আসেন খামারে। এগিয়ে গেছেন ইতিহাস বিভাগ থেকে এমএ পাশ করা এই উদ্যোক্তা। বেড়েছে তার খামারের পাখি। ১৪ বছরে তিনি ছোটবড় ৩০টি খামার গড়েছেন যেখানে এখন পাখির সংখ্যা ৭০ হাজারেরও বেশি। তিনি নিজে স্বনির্ভর হয়েছেন, ৪০ জন মানুষের কর্মসংস্থানও করেছেন।

উদ্যোক্তা শহিদ জানান, জাপানী জাতের কোয়েল পাখি থেকে তিনি ডিম উৎপাদন করেন। ২ টাকা থেকে ৩ টাকা করে মাসে ৬ লাখ পিছ ডিম বিক্রি, নিজস্ব ইনকিউবেটরে প্রতি মাসে দেড় লাখ বাচ্চা উৎপাদন, খাবার উপযোগি পাখি বিক্রি করেন প্রতি মাসে ৪৫ হাজার পিছ। ২৫ থেকে ৩০ দিনে ২৪ টাকার খাবার খেয়ে একটি পাখি ২২০ থেকে ২৫০ গ্রাম ওজন হয়। খাবার উপযোগি এসব পাখি ৩০ থেকে ৩৫ টাকায় বিক্রি হয়। ৪৫ থেকে ৬০ দিনের একটি পাখি বছরে ৩ শতাধিক ডিম দেয়। ইনকিউবেটরে ১৮ দিনে বাচ্চা ফুটিয়ে তা ৭ টাকা পিছ হিসেবে বিক্রি করেন তিনি। সব মিলিয়ে বছরে ৪ কোটি টাকার বেচাকেনা হয়। রাজধানী ঢাকা সিলেট চট্রগ্রামসহ সারাদেশেই যাচ্ছে এই পাখি।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. আনিছুর রহমান জানান, গাবতলীর শহিদ একজন সফল খামারী। বেকার যুবকের জন্য তিনি দৃষ্টান্ত। তার মত কোয়েল পাখির খামার করে অনেকেই স্বনির্ভর হতে পারেন। জেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর থেকে সহযোগিতার কথা জানান তিনি।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close