আবু সাইদ খোকন, আমতলী (বরগুনা)

  ২৫ জানুয়ারি, ২০২৩

চাঙ্গা হচ্ছে আমতলীর কৃষি অর্থনীতি

বরগুনার আমতলী উপজেলার অর্থনীতিকে সচল রেখেছে কৃষি। জীবন বাজি রেখে কৃষক জমিতে আবাদ চালিয়ে যাচ্ছেন। লাভ লোকসান যাই হোক কৃষিকাজে নিযুক্ত শ্রমিকরা বেশ ভালো আছেন। কৃষকরা ধান, তরমুজ, বাদামসহ সবজি আবাদ নিয়ে তৃপ্তির ঢেকুর তুলছেন। প্রতিদিন কৃষি শ্রমিকদের মজুরি কমপক্ষে ৬০০ টাকা।

আমতলীর কৃষি খাতে বহুমুখী কাজ এখন। কবির মিয়া নামে মাল্টা বাগানের এক মালিক বলেন, আমার বাগানে বেশ কিছু শ্রমিক কাজ করছে। এতে তাদের স্বচ্ছলতা আসছে। এলাকায় দেখাদেখি অনেকেই নতুন নতুন বাগান গড়ে তুলছে। সেখানেও প্রচুর শ্রমিকের কাজ হচ্ছে।

হলদিয়া ইউনিয়নের পূর্বচিলা গ্রামের কৃষি শ্রমিক সাইদুর বলেন কৃষি শ্রমিকের কাজ করে অভাব মোচন হয়েছে। এ দুঃসময়ে ভালো আছি। সাচ্ছন্দ্যে দিন কাটছে।

এদিকে আমতলীর মৎস্য খাতও বেশ এগিয়েছে। মৎস্য চাষে বিপ্লব ঘটিয়েছে। আমতলীতে বছরে মাছের চাহিদা রয়েছে তিন হাজার ৫৩৫ টন। আর উৎপাদন হচ্ছে চার হাজার ৪৫৮ টন। চাহিদার বিপরীতে অতিরিক্ত বেশি উৎপাদিত ৯২৩ টন মাছ। এতে আমতলী উপজেলার সিংহভাগ মানুষের আমিষের অভাব পূরণ হচ্ছে।

স্থানীয় মৎস্য চাষি নজরুল ইসলাম বলেন, প্লাবন ভূমিতে মাছ চাষের ফলে আমতলী ও আশপাশের মানুষের অভাব ঘুচেছে। হাসি ফুটেছে তাদের মুখে, সুখ ফিরেছে সংসারে। শিক্ষিত তরুণরাই এখন এ পেশায় বেশি ঝুঁকছে। ফলে কমেছে বেকারত্বও। তাদের দেখাদেখি আশপাশের এলাকার মানুষও এখন প্লাবন ভূমিতে মাছ চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে।

এ বিষয়ে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা হালিমা সর্দার বলেন, আমতলীতে মাছের উৎপাদনও বাড়ছে। তাছাড়া উপজেলায় মাছের চাষ ও রোগ প্রতিরোধে মৎস্য বিভাগ চাষিদের প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ দিচ্ছে।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close