শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি

  ০৭ ডিসেম্বর, ২০২২

গ্রাম্য সালিসে অপমান শিক্ষার্থীর আত্মহনন

গাজীপুরের শ্রীপুরে গ্রাম্য শালিসে অপমান সহ্য করতে না পেরে রায়হান (১৯) নামে এক কলেজ ছাত্র গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। সোমবার (৫ডিসেম্বর) রাতে উপজেলার তেলিহাটি ইউনিনের মূলাইদ গ্রামের রঙ্গীলা বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রায়হান ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার পুরুরা গ্রামের মৃত রুহুল আমীনের ছেলে। সে রাজধানীর মিরপুর পলিটেকনিক কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিল। পরিবারের সঙ্গে উপজেলার মূলাইদ গ্রামের রঙ্গীলা বাজার এলাকার আমিনুলের বাড়িতে ভাড়া থাকতো সে।

নিহতের বড় বোন রুমকী জানান, প্রায় ২০ বছর ধরে ওই বাড়িতে ভাড়া থাকেন তারা। কলেজ বন্ধ থাকায় তিন মাসের ছুটিতে বাসায় এসেছিল রায়হান। স্থানীয় রাব্বি, হাসিবুল রায়হান ও তার বান্ধবী রায়হানকে জড়িয়ে এলাকায় কুৎসা রটনা করে। রায়হান মাদক সেবন করে এমন কথা বলে বেড়ায় তারা। এর প্রতিবাদ করায় শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) বিকেলে রাব্বি ও হাসিবুল রায়হানকে মারধর করে। পরে ঘটনার বিষয়ে ওই দুই যুবকের পরিবারকে জানালেও তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। উল্টো রায়হানকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়। শনিবার (৩ ডিসেম্বর) বিকেলে রায়হানের বোন রুমকী রাব্বিকে পেয়ে তার ভাইকে মারার কারণ জানতে চায়। একপর্যায়ে রুমকী ওই যুবকে চড় মারে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রোববার (৪ ডিসেম্বর) রায়হানের বাড়িতে হামলার চেষ্টা করে তারা। এ নিয়ে সোমবার (৫ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় রঙ্গীলা বাজারে শালিস বসে। প্রতিপক্ষের লোকজন রায়হানসহ তার মা-বোনকে গালিগালাজ ও চরমভাবে অপমান করে এলাকা ছাড়ার হুমকি দেয়। শালিসে লোকজন রায়হানকে মারতে আমার মাকে হুকুম দেন। চাপের মুখে নিরুপায় হয়ে মা রায়হানকে দুটি চড় মারে। অপমান সহ্য করতে না পেরে রায়হান আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়।

তেলিহাটি ইউনিয়নের মেম্বার মোবারক হোসেন বলেন, দুই পক্ষের মধ্যে ঝগড়া ছিল। শালিসে তাদের মিলিয়ে দেওয়া হয়। রায়হান পরে কেন আত্মহত্যা করলো তা জানা নেই।

শ্রীপুর থানার পরিদর্শক মুহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, শালিসে অপমান সইতে না পেরে ওই কলেজ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close