দৌলতখান (ভোলা) প্রতিনিধি

  ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২

দৌলতখানে বিচারের দাবি

ধর্ষণের শিকার অন্তঃসত্ত্বা যুবতী

ভোলার দৌলতখানে ধর্ষণের শিকার হয়ে গর্ভে ছয় মাসের সন্তান নিয়ে বিচারের দাবিতে ঘুরছে ১৮ বছরের এক যুবতী ও তার পরিবার। ছয় মাস আগে যুবতীর মা চাল আনতে গেলে উপজেলার চরপাতা ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের আবু তাহের মোল্লার ছেলে তিন সন্তানের জনক জেলে আলমগীর তাকে ধর্ষণ করে। এতে সে গর্ভবতী হয়ে পড়েন বলে জানায় ওই ভুক্তভোগী যুবতী। উপজেলার মেদুয়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের মুন্সির হাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী ওই মেয়ে জানান, পারিবারিকভাবে ৭ মাস আগে তার বড় বোনের বিয়ে হয় অভিযুক্ত আলমগীরের ছোট ভাই সবুজের সঙ্গে। বিয়ের পর থেকে আলমগীর তাদের ঘরে আসা-যাওয়া করতেন। গত ২২ ফেব্রুয়ারি তার মা ইউনিয়ন পরিষদে চাল আনতে যান। এ সময় ঘরে একাই ছিলো ওই যুবতী। এ সুযোগে আলমগীর পিছনের দরজা দিয়ে ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেয়। কিছু বুঝে ওঠার আগেই আলমগীর তার মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। এতে সে ছয় মাসের অন্ত:সত্ত্বা হয়ে পড়েন।

ভুক্তভোগীর মা বলেন, আমার অনুপস্থিতিতে আলমগীর বিয়ের আশ্বাসে পিতৃহারা মেয়েকে ধর্ষণ করে। এতে সে অন্ত:সত্ত্বা হয়ে পড়ে। তার গর্ভে এখন ছয় মাসের সন্তান। তিনি তার মেয়ের গর্ভের সন্তানের পিতৃত্বের স্বীকৃতি চান। এ ঘটনা সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মনজুর আলমকে জানিয়েও কোন সুরাহ হয়নি বলে তিনি জানান।

এদিকে অভিযুক্ত জেলে আলমগীর বলেন, এসব অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। ইউপি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মনজুর আলম বলেন, ঘটনাটি জানতে পেরে ভিকটিমের পরিবারকে ডেকে এনেছি। কিন্ত তারা আমাকে কিছু বলেননি।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close