যশোর প্রতিনিধি

  ০৯ আগস্ট, ২০২২

শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ

যশোরের অভয়নগরে নাইমা খাতুন (৮) নামের এক শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় একজনকে আটক করেছে পুলিশ। সে উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের মনিরুল ইসলামের মেয়ে। রবিবার (৮) বিকালে ঘটনাটি ঘটে।

পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, নাইমার সঙ্গে পাশ্ববর্তী আমজাদ নামে একজনের ভালো সম্পর্ক ছিলো। রবিবার বিকালে দোস্তকে পেয়ারা দেওয়ার কথা মাকে বলে শিশুটি বাড়ি থেকে বের হলে আর ফিরে আসেনি। অনেক খুঁজেও তাকে পাওয়া যায়নি। পরিবারের সদস্যরা আমজাদের কাছে গেলে সে বলে কিছু জানিনা। তারপর গ্রামবাসী রাতে টর্চ লাইট নিয়ে বিভিন্ন স্থানে খুঁজতে থাকে।

খোঁজাখঁজির এক পর্যায়ে মেয়েটির বড় চাচা রফিক স্থানীয় লুৎফরের পরিত্যক্ত ঘেরের কচুরীপানার মধ্যে একটি হাতের অংশ দেখে নাইমার মৃতদেহ শনাক্ত করেন। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। সেই সঙ্গে ঘটনায় জড়িত সন্দেহে কোরেশ মোল্লার ছেলে আমজাদ মোল্লাকে আটক করে। ঘটনা তদন্তে যশোর পুলিশ ইনভেস্টিগেশন ব্যুরো (পিবিআই) কাজ শুরু করেছে।

নাইমা খাতুনের বড় ভাই নাঈম হোসেন জানান, তার বোনকে ধর্ষণের পর হত্যা করে লাশ গুম করার চেষ্টা করা হয়েছে। বোনের হত্যাকারীদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড চান তিনি।

অভয়নগর থানার ওসি একেএম শামীম হাসান বলেন, শিশুর লাশ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর রহস্য জানা যাবে।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close