ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি

  ০৪ ডিসেম্বর, ২০২১

বড়পুকুরিয়া কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র

কয়লা সংকটেও বন্ধ হয়নি উৎপাদন

দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার বড়পুকুরিয়া কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ অব্যাহত রয়েছে। কয়লা সংকটের মধ্যেও তিনটি ইউনিট থেকে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ উৎপাদন অব্যাহত রয়েছে। তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে কর্মরত ১২০ চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী করোনার মধ্যেও তাদের চাকরি প্রমোশনের সহযোগিতা করেছেন কেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী এস এম ওয়াজেদ আলী সরদার ও বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, বড়পুকুরিয়া কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে স্বাস্থ্যবিধি মানার কারণে কেউ করোনা আক্রান্ত হয়নি। ২০২০ সালে মার্চ থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রত্যেকটি কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সতর্কতার সঙ্গে কাজ করার পরামর্শ দেওয়া হয়। ফলে তারা সঠিকভাবে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের কার্যক্রম পরিচালনা করে। বড়পুকুরিয়া কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে উৎপাদিত বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রেডে সরবরাহ করার ফলে চলতি বছর ইরি বোর মৌসুমে বিদ্যুৎ পেতে উত্তর অঞ্চলের ১৬টি জেলায় কৃষকদের কোনো সমস্যা হবে না। এতে উত্তর অঞ্চলের ১৬টি জেলায় ইরি বোরো ধানের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। অপর দিকে বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ করার ফলে উত্তর অঞ্চলের ১৬টি জেলায় ছোট-বড় কল-কারখানায় উৎপাদন অনেক অংশে বৃদ্ধি পেয়েছে।

তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী এস এম ওয়াজেদ আলী সরদার ২০২০ সালে মার্চে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে যোগদান করার পর তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের তিনটি ইউনিটকে সচল করে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ অব্যাহত রেখেছেন। বর্তমানে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে প্রায় চার হাজারেরও বেশি টন কয়লা তিনটি ইউনিটে পর্যায়ক্রমে ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে অন্য ইউনিটগুলো ওভার হোলিং করে সচল করা হয়। চীনা কোম্পানি এবং তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে দক্ষ প্রকৌশলী ও শ্রমিকরা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটির বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধিতে ব্যাপক সহায়তা অব্যাহত রেখেছে।

এ বিষয়ে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী এস এম ওয়াজেদ আলী সরদার বলেন, আমি যোগদান করার পর যেসব বড় ধরনের সমস্যা ছিল তা সমাধান করেছি। বর্তমানে সারা দেশে কল-কারখানা ও কৃষিতে উৎপাদন বাড়াতে বিদ্যুতের ব্যাপক উন্নয়ন করা হয়েছে। কয়লার সরবরাহ কম থাকলেও বিদ্যুৎ উৎপাদনে কোনো সমস্যা নেই। চলতি বছর দুটি ইউনিটের ওভার হোলিংয়ের কাজ শেষ করে ধারাবাহিকভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়ে সরবরাহ করা হচ্ছে। বিদ্যুৎ সরবরাহে যাতে কোনো সমস্যা না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রেখে তিনটি ইউনিট থেকে আমরা বিদ্যুৎ সরবরাহ করছি। তিনি আরো বলেন, তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে বঙ্গবন্ধুর শতবর্ষ উপলক্ষে মুজিব কর্নার স্থাপন করা হয়েছে। শহীদ মিনার ও মসজিদ নির্মাণ করা হয়েছে।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close